ইসলামী ব্যাংকঃ অবিচল আস্থার নাম

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর বিরুদ্ধে অভিযোগ আর অপপ্রচারের কোন সীমা-পরিসীমা নেই। পত্র-পত্রিকায় ছাঁপানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিগুলো বাদ দিলে দেশের সব কটি ব্যাংকের পক্ষে যতগুলো সংবাদ প্রকাশিত হয় তার চেয়ে অনেক বেশী সংবাদ প্রকাশিত হয় ইসলামী ব্যাংকের বিরুদ্ধে। অথচ ব্যাংকটির সাফল্য আর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি ও সম্প্রসারণ এসকল অপপ্রচার কিছুতেই ঠেকিয়ে রাখতে পারছে না। জঙ্গি অর্থায়ন, ইসলামকে পুঁজি করে ব্যবসা, সুদকে ঘুরিয়ে খাওয়া ইত্যাদি ইত্যাদি অপপ্রচারের পরও ব্যাংকটির অগ্রযাত্রা দিন দিন আরো জোরদার হচ্ছে। সূত্রমতে, ৩০ জুন ২০০৯ সাল পর্যন্ত ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর আমানতের পরিমাণ ২১৯,৯৫৮ মিলিয়ন টাকা, বিনিয়োগের পরিমাণ ২০৪,২১৮ মিলিয়ন টাকা এবং বৈদিশিক বাণিজ্যের পরিমাণ ২১৭,৯৯৬ মিলিয়ন টাকা। বৈদেশিক বাণিজ্যের মধ্যে শুধু ফরেন রেমিটেন্স এর পরিমাণই ৯১,৬৪৬ মিলিয়ন টাকা যা দেশে আসা মোট রেমিটেন্স এর ২৫% এরও বেশী। অর্থাৎ ১১৮২টি শাখাসমৃদ্ধ সোনালী ব্যাংক, ৯৫২ টি শাখাসমৃদ্ধ কৃষি ব্যাংক, ৮৪৯ টি শাখা সমৃদ্ধ জনতা ব্যাংক, ৪৯২ টি শাখা  সমৃদ্ধ রূপালী ব্যাংকসহ তফসিলি ৪৭টি ব্যাংক, বেশ কিছু এনজিও তথা ৩৩২৪টি শাখার সুবিস্তৃত নেটওয়ার্কের এনজিও আশা,   ৩০৪২টি বিস্তৃত শাখা নেটওয়ার্ক সমৃদ্ধ ব্রাক এবং দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে থাকা এবং বিস্তৃত নেটওয়ার্ক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ পোস্ট অফিসের মাধ্যমে ফরেন রেমিটেন্স আসছে ৭৫ %, আর শুধু ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড তার ২০০ টি শাখা ও ১২ টি এসএমই সার্ভিস সেন্টার নিয়ে দেশের মানুষের হাতে পৌঁছে দিচ্ছে এক চতুর্থাংশ বৈদেশিক মুদ্রা, যা বিশ্বে বিরল।

তাহলে ইসলামী ব্যাংকের মূল শক্তি কোথায়? কি যাদুমন্ত্রবলে ইসলামী ব্যাংক সাফল্যের শীর্ষস্থান ধরে রাখছে বছরের পর বছর?

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড-এর প্রধান শক্তিই হলো অবিচল আস্থা। দেশের আপামর জনগণ ইসলামী ব্যাংকের উপর যে অপরিসীম আস্থাশীল তার সচেতন মহল জানেন। বিশেষ করে ২০০৫ সালে ইসলামী ব্যাংকের সাথে জঙ্গি অর্থায়নের যে ব্যাপক অপপ্রচার হয়েছিল, “ব্যাংক থেকে ডিপেজিট তুলে নেয়ার হিরিক”, “ব্যাংকের শেয়ারে ধ্বস” ইত্যাদি অপপ্রচারেও ইসলামী ব্যাংকের প্রতি গণমানুষের আস্থায় ন্যূনতম চির ধরে নি। আর এ আস্থা শুধু কথায় তৈরী হয় নি। ২৬ বছরে ইসলামী ব্যাংক প্রমাণ করেছেন “ইসলামী ব্যাংক: ইসলামী শরীয়াহ্ মোতাবেক পরিচালিত”। সুদকে ঘুরিয়ে নয় বরং হালাল ব্যবসা থেকে অর্জিত আয়ই ইসলামী ব্যাংক তার আমানতকারীদের প্রদান করছে।

ইসলামী ব্যাংকের আরেকটি বৈশিষ্ট হলো এটি সকল ধর্মের, সকল বর্ণের, সকল রাজনৈতিক মতাদর্শের, ধনি-গরীব নির্বিশেষে সবার ব্যাংক। এখানে যেমন দেশের সবচেয়ে ব্যক্তিকে সাদরে বরণ করে নেয়া হয় ঠিক তেমনি সমাজের সবচেয়ে নিম্ন আয়ের লোকটির জন্যও ইসলামী ব্যাংকের দরজা স্বাগত জানাতে সদা প্রস্তুত।  উদাহরন দিলে দেখা যাবে দেশের সবচেয়ে বড় শিল্পপতিরা ইসলামী ব্যাংকের অর্থায়নে সুনামের সাথে ব্যবসা করছে আবার ঝালকাঠীর রন্জুকে দেখা যায় দ্বারে দ্বারে ভিক্ষে করে অর্জিত টাকার একটা অংশ ইসলামী ব্যাংকে এনে জমা করছে ভবিষ্যত সঞ্চয়ের আশায়। “ইসলামী ব্যাংক আমার ব্যাংক”-এ স্লোগানটি আসলে যে কতটা বাস্তব তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা।

ইসলামী ব্যাংকের রয়েছে একদল দক্ষ কর্মী বাহিনী যারা ইসলামী ব্যাংকে চাকুরী করারে নিছক পেশা মনে করে না বরং তারা এ চাকুরীকে তারা ইবাদত মনে করে। তাইতো ৯টা-৫টা অফিসেই তাদের বেধেঁ রাখতে হয় না, তারা কাজ করে যায় কখনো কখনো গভীররাত অব্দি।

ইসলামী ব্যাংক শুধু মাত্র ইসলামে শব্দটি প্রয়োগ করে সাধারণ জনগণের ভালোবাসা অর্জন করেনি বরং ইসলামের সাথে সর্বাধুনিক প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটিয়ে তারা দেশের ব্যাংকিং জগতে ইর্ষণীয় সাফল্যে পৌঁছে গেছে। ওপেনসোর্স সফ্টওয়ারদিয়ে তৈরী দেশে প্রথম অনলাইন ইসলামিক ব্যাংকিং সফ্টওয়ার (ইআইবিএস) ব্যাপকভাবে প্রসংশিত হয়েছে। এছাড়া ই-ক্যাশ (এটিএম) সার্ভিস, এসএমএস (পুশ-পুল)সার্ভিস, ইন্টারনেট ব্যাংকিং গ্রাহকদেরকে দিচ্ছে সর্বাধুনিক ব্যাংকিং সুবিধা। দেশের যে কোন প্রান্ত থেকেই এখন এসএমএস এর মাধ্যমে ব্যালেন্স জানা যাচ্ছে, ওয়েব পোর্টাল ব্যবহার করে বিশ্বের যে কোন প্রান্ত থেকে দিন রাত যে কোন সময়ে ইন্টারনেটের মাধ্যমে একাউন্টের ব্যালান্স জানা যাচ্ছে, স্টেটমেন্ট প্রিন্ট করা যাচ্ছে। এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে http://ibblportal.islamibankbd.com/ এ ক্লিক করুন। আর ইসলামী ব্যাংক সম্পর্কে জানতে ক্লিক করুন http://www.islamibankbd.com/home.php ঠিকানায়। অনলাইন ব্যাংকিং এর জন্য আরো জানতে http://www.islamibankbd.com/online_banking.php এ ক্লিক করুন।

portal

sms

15 Replies to “ইসলামী ব্যাংকঃ অবিচল আস্থার নাম”

  1. ইসলামী ব্যাংকের অনলাই সুবিধাটি আমার জন্য খুবই কাজে দিচ্ছে। তবে কিছু সার্ভিসের মান আরো উন্নত করা দরকার। কর্মকর্তাদের যথাযথ প্রশিক্ষণের দরকারও রয়েছে বলে আমার কাছে মনে হয়েছে।

    [উত্তর দিন]

  2. আমিও আপনার সাথে একমত। তবে যেহেতু ব্যাংকটি শরিয়াহ ভিত্তিক, তাই তার উপযোগী সফ্টওয়ার রেডিমেট পাওয়া যায় না, ব্যাংকটির সফ্টওয়ার ইত্যাদি তৈরী ও উন্নয়নের আইসিটি ডিভিশন অক্লান্ত পপরিশ্রম করছে। ওয়েবসাইটের মাধ্যমেই যাতে ফান্ড ট্রান্সফার করা যায়, ইউটিলিটি বিল পরিশোধ করা যায় কিংবা চেক রিক্যুইজিশান দেয়া যায় সে সব সযোগ সুবিধা সহ অচিরেই এটি আন্তর্জাতিকমানের সকল সুযোগসুবিধা দেয়ার ব্যাপারে চেষ্টা চালাচ্ছে।

    [উত্তর দিন]

  3. Thanks Shahriar Vi, Your topic is resourceful and praise-worthy.I know IBBL is trying its level best to serve the best service to its honoured client. But it should update its resources without delay. IBBl should take care of the remuneratiion & benefits of its manpower, as the world becomes more competitive.
    Thanks again Mr. Shahriar.

    [উত্তর দিন]

    শাহরিয়ার উত্তর দিয়েছেন:

    ধন্যবাদ। আমিও আপনার সাথে একমত। আমার পরিচিত যারা ইসলামী ব্যাংকে চাকুরী করেন তাদের কেউ কেউ বেতন নিয়ে কিছুটা হতাশায় আছেন। তবে গণমুখী একটি ব্যাংক ইচ্ছে করলেই যেমন আয়ের উৎস বাড়াতে পারে না, তেমনি বেতন বাড়াতে পারে না। আমার জানামতে ইসলামী ব্যাংক গ্রাহকদের কাছ থেকে বাৎসরিক কোন সার্ভিস চার্জ নেয় না, প্রত্যেকের কাছ থেকে যদি ৫০ টাকা করেও নিত তাহলেও ব্যাংকের আয় অনেক বেড়ে যেত। তবে আগেই বলেছি শহুরে ব্যাংক গুলোর মতো ইচ্ছে করলেই গণমুখী এ ব্যাংকটি অনেক চার্জ ধার্য করতে পারে না।
    এ ব্যাংকের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করছি এবং ব্যাংকের কর্মকর্তা কর্মচারীরাও ইসলামের স্বার্থে আর্থিক কিছুটা ক্ষতি স্বীকার করে হলেও নিষ্ঠার সাথে কাজ করবেন এ আশা করছি।

    [উত্তর দিন]

  4. http://www.somewhereinblog.net/blog/thinkpipe/29138113#c4351667 – এইখানে আপনার ব্লগের লিঙ্ক রেখে আসলাম…

    [উত্তর দিন]

    শাহরিয়ার উত্তর দিয়েছেন:

    ধন্যবাদ। আপনার ভালোবাসা আমাকে আরো ঋণে জড়ালো। তবে সামুতে মন্তব্য করার আগে আরেকটু খোঁজখবর নিয়ে নিশ্চিত হওয়া উচিত ছিল।

    [উত্তর দিন]

    নো-নেম উত্তর দিয়েছেন:

    সরি ভাই…
    সম্ভব হলে ভুলটা শুধরে একটা কমেন্ট করে আসেন প্লিজ।

    [উত্তর দিন]

  5. ধন্যবাদ শাহরিয়ার ভাই, রাসুল (সা:) যখন ইসলাম প্রচারের জন্য হজ্জের মৌসুমে বিভিন্ন তাবুতে গিয়ে দাওয়াত দিত, আর আবু লাহাবের দল “লোকটি পাগল, জাদুকর, কবি” বলে অপবাদ দিয়ে মানুষকে মহানবী (সা: )থেকে দূরে রাখার চেষ্টা করত তাতে লোকজনের মনে সন্দেহ জাগত আর বলতো আসলেই লোকটি কেমন জানার আগ্রহ বেড়ে যেত, ঠিক তেমনি ইসলামী ব্যাংকের ব্যাপারে ও অপপ্রচার প্রচার হিসাবে কাজ করেছে। আমি ও আগে ন্যাশনাল ব্যাংক এবং প্রাইম ব্যাংক এ কিন্তু এখন ৩/৪ মাস আগ থেকে শুধুমাত্র ইসলামী ব্যাংকে পাঠাই।

    [উত্তর দিন]

  6. আমি ও আগে ন্যাশনাল ব্যাংক এবং প্রাইম ব্যাংক এ টাকা পাঠাতাম কিন্তু এখন ৩/৪ মাস আগ থেকে শুধুমাত্র ইসলামী ব্যাংকে পাঠাই।

    [উত্তর দিন]

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.