সমকাল হতে পারে হলুদ সাংবাদিকতার উৎকৃষ্ট নমুনা

২০১১ সালেরে আজকের এই প্রথম দিনটিতে যেসকল পাঠক দৈনিক সমকাল পত্রিকাটি পড়েছেন তারা বিস্ময়ে বিমূঢ় হয়েছেন। বিশেষ করে যারা রাজনীতি সচেতন তারা দৈনিক সমকালের দায়িত্বহীন হলুদ সাংবাদিকতায় বিব্রত হয়েছেন এবং আর কখনোই পত্রিকাটি পড়বেন না বলে অনেকে হয়তো সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, অবশ্য যাদের বাড়ির টয়লেট টিস্যু ফুরিয়ে গেছে তাদের কথা আলাদা।

বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের ২০১১ সেশনের জন্য নির্বাচিত কেন্দ্রীয় সভাপতি ও মনোনীত সেক্রেটারী জেনারেলের রিপোর্টটি প্রকাশ করতে গিয়ে হলুদ সাংবাদিকতার সকল মাত্রা ছাড়িয়ে গেছে দৈনিক সমকাল। হঠকারী মিথ্যে মামলায় আটক আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর নামকে জড়িয়ে রিপোর্টটি পরিবেশিত হয়েছে যাতে তাকে ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী জেনারেল হিসেব মনোনয়নের কথা উল্লেখ করেছে পত্রিকাটি। এখানে ক্ষ্যান্ত হয় নি পত্রিকাটি বরং আরো এগিয়ে প্রচার করেছে, সাঈদীর নাম অন্তর্ভূক্তিতে জামায়াতের রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধনের শর্ত ভঙ্গ হয়েছে। অথচ যারা একটু সচেতন তারা জানেন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরে ছাত্র ছাড়া অন্য কারো দলে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার সুযোগ নেই বরং শিবিরের কোন ছাত্রের পরীক্ষার রেজাল্ট বেরোনোর পর যদি তার আর কোন স্তরে ভর্তির সম্ভাবনা না থাকে তবে আপনা আপনিই সদস্যপদ বিলুপ্ত হয়ে যায়। বিস্তারিত জানতে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের সংবিধান দেখে নিতে পারেন।

শিবিরের সেক্রেটারী জেনারেল হিসেবে যিনি মনোনীত হলেন তার নামটিও সাঈদী অর্থাৎ “এক সাঈদী কারাগারে লক্ষ সাঈদী লড়াই করে” বলে যে স্লোগানটি রয়েছে শিবিরের নতুন সেক্রেটারী জেনারেল তারই উৎকৃষ্ট উদাহরণ। আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী সারা বাংলা নয় বরং সারা বিশ্বের মুসলিম জনতার মনের মুকুরে শ্রদ্ধার যে স্থায়ী আসনে অধিষ্টিত হয়ে আছেন তাতে বাংলার আনাচে কানাচে লক্ষ লক্ষ সন্তানের নাম যদি দেলাওয়ার হোসেন সাঈদী হয় তবে অবাক হওয়ার কিছু নেই বরং বাংলাদেশের ইসলামপ্রিয় মায়েরা সাঈদীর মতো সন্তানকে গর্ভে ধারণ করে গর্ব করার স্বপ্ন দেখেন।

দৈনিক সমকাল পত্রিকাটি ইসলামী আন্দোলনের বিরুদ্ধে শুধু আজই নয় নিরবিচ্ছিন্নভাবে নিয়মকরে একের পর এক হলুদ সাংবাদিকতার তীর ছুড়ে মেরেছে। কিছুদিন আগে মাওলানা মতিউর রহমান নিযামীর একটি উক্তি নিয়ে মতামত যাচাই করতে গিয়ে পত্রিকাটি ডিজিটাল কারচুপির যে নজীর স্থাপন করেছিল তা প্রিন্ট মিডিয়ার ক্ষেত্রে ছিল নজীরবিহীন। যারা সমকালের হলুদ সাংবাদিকতা নিয়ে এখনো কিছুটা বিভ্রান্ত তারা পড়ে দেখতে পারেন সমকালের ভোটচুরি শিরোনামে লেখা ব্লগটি।

আসুন হলুদ সাংবাদিকতা পরিহার করি, ডেস্ক নির্ভর পত্রপত্রিকা পরিহার করি, তথ্যাধিকার নিশ্চিত করি।

One Reply to “সমকাল হতে পারে হলুদ সাংবাদিকতার উৎকৃষ্ট নমুনা”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.