উনুন থেকে ছড়িয়ে পড়ুক ইসলামী বিপ্লব

ইসলামী আন্দোলনের লাখো লাখো নেতা-কর্মীর মতো আমিও বিপ্লবের স্বপ্ন দেখি। প্রতিনিয়ত এমন একটা সমাজের চিত্র মনের মাঝে এঁকে চলেছি, যে সমাজে একমাত্র আল্লাহর প্রভূত্ব প্রতিষ্ঠিত, যেখানে মানুষরূপী দানবেরা মানুষের ভাগ্যবিধাতা হয়ে জেঁকে বসতে পারে না, যে সমাজে নারী-পুরুষ, ধনী-গরিব, মুসলিম অমুসলিম সবার রয়েছে বেঁচে থাকার সমান অধিকার, খাদ্য-বস্ত্র-বাসস্থানের নিশ্চয়তা। এমন একটা সমাজের স্বপ্ন বুনে চলেছি যে সমাজের আমীর, দূর ফোরাতের তীরে ক্ষুধায় কোন কুকুরের মুত্যুতেও জবাবদিহিতা অনুভব করে। যে সমাজের বিচারকের দরবারে অপরাধী নিজ সন্তানও চাবুকের সাজা পেয়ে মৃত্যুর দুয়ারে পা বাড়ায়, যে সমাজে একাকী নারী সানা থেকে হাজরামাউত পর্যন্ত নির্ভয়ে যাত্রা করে।

দেখতে দেখতে অনেকটা বছর পেরিয়ে গেল, তবু ইসলামী বিপ্লব অধরাই থেকে যায়। মাঝে মাঝে বিপ্লবীদের ঘোড়ার হ্রেষা শব্দে রক্ত টগবগিয়ে ওঠে, সময়ে আবার তাও স্বপ্নের মতো হাওয়া মিলিয়ে যায়। চারিদিক থেকে ক্রমাগত আধার এসে ঢেকে দিতে চায় স্বপ্নবিলাস। তবু স্বপ্নেরা বেঁচে রয়। স্বপ্নের কোন সীমা নেই, বিপ্লবের মৃত্যু নেই।

বিশাল এ মহাবিশ্বে এমন একটু জমিনও কি নেই যেখানে প্রতিষ্ঠা করা যায় আল্লাহর হুকুমাত? যেখানে সাদাকে সাদা বলা যায়, কালোকে বলা যায় কালো?

অথচ ইসলামী বিপ্লবের গণগণে আগুন বুকের ভেতরেই বয়ে বেড়াই আমরা। পরিকল্পিতভাবে একটি চেষ্টা চালালেই সে আগুন ছড়িয়ে দিতে পারি এই আমার সাড়ে তিন হাত জমিনে। এ জমিনে আমিই শাসক, আমিই আল্লাহর খলিফা। ইচ্ছে হলেই আমি বাতিলের সকল ষড়যন্ত্র ছিন্নভিন্ন করে ইসলামের বিজয় পতাকা উড্ডীন করতে পারি ইসলামী দূর্জয় কেল্লায়। ইচ্ছে হলেই প্রয়োগ করতে পারি হালাল-হারামের বিধান। ইচ্ছে হলেই সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক তথা সকল ক্ষেত্রেই বইয়ে দিতে পারি রহমতের সুবাতাস।

ইচ্ছে হলেই খেলাফতের সীমা আরেকটু বাড়াতে পারি, একে একে জয় করে নিতে পারি আমার নিয়ন্ত্রণাধীন আশপাশের রাজ্যগুলো। যার শাড়ী, গহনা, খাওয়া পড়া, আদর সোহাগ ভালোবাসার চাবিকাঠি আমার হাতে, তার মাঝে ইসলামী বিপ্লবের আগুন ছড়িয়ে দেয়া খুব কি কঠিন? কিংবা তাদের মাঝে, যারা জন্ম থেকেই আমাকে তাদের আমীর মেনে চলেছে, আমার আদেশ শিরোধার্য করে নিয়েছে, নিষেধগুলোকে এড়িয়ে চলেছে সচেতনভাবে। তাদের মাঝে ইসলামী বিপ্লব ছড়িয়ে দিতে বাধা কোথায়? আমার সন্তানকে আমি যদি ইসলামী আন্দোলনের জানবাজ মুজাহিদে পরিণত করতে না পারি সে ব্যর্থতা শতভাগ আমারই, সন্তানের নয়। ইচ্ছে হলেই আমি আমার সংসারে পরিপূর্ণ ইসলামী বিপ্লবের প্লাবন বইয়ে দিতে পারি। ইচ্ছে হলেই হারাম উপার্জন বর্জন করে ইসলামী অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করতে পারি। ইচ্ছে হলেই সবার পরামর্শের ভিত্তিকে সিদ্ধান্ত নিয়ে ঘরে ইসলামী রাজনৈতিক পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারি। ইচ্ছে হলেই অপ্রয়োজনীয় টিভি চ্যানেলগুলো বর্জন করতে পারি, ইসলামী সংস্কৃতির প্রসার ঘটাতে পারি।

ইচ্ছে হলেই আমি প্রমাণ করতে পারি আমি আমরাই প্রতিবেশীদের কাছে আদর্শ পরিবার। ইচ্ছে হলেই আমার হাত থেকে আমি নিরাপদ রাখতে পারি প্রতিবেশীদের। তাদের হক আদায়ে হতে পারি আমি উদারহস্ত। ইচ্ছে হলেই তাদের মাঝেও ইসলামের সুমহান আদর্শকে সত্যের স্বাক্ষ্য হয়ে তুলে ধরতে পারি।

এভাবে ব্যক্তি, ব্যক্তি থেকে পরিবার, পরিবার থেকে সমাজ, সমাজ থেকে রাষ্ট্র সর্বত্র বিপ্লবের হাওয়া ছড়িয়ে দেয়া যায়। মিছে মিছে এদিক সেদিক উঁকি না দিয়ে সর্বাগ্রে নিজের প্রতি নজর দেয়া প্রয়োজন, নিজের পরিবারের যত্ন নেয়া প্রয়োজন, পাড়া মহল্লা, অফিস আদালতে নিজেকে উপস্থাপন করতে হবে ইসলামী বিপ্লবের জীবন্ত উদাহরণ। যাদের হৃদয় মোহরা মারা হয় নি, যারা বোবা, কালা, অন্ধ নয়, সত্যের স্বাক্ষ্যে তারা নিশ্চিতভাবে ছুটে আসবে ইসলামের সুমহান ছায়াতলে।

One Reply to “উনুন থেকে ছড়িয়ে পড়ুক ইসলামী বিপ্লব”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.