প্রেম পরকীয়া প্রতিশোধ প্রতিরোধ

সখি ভালোবাসা কারে কয়, সে কি কেবলি যাতনাময়, সেকি কেবলই চোখের জল, সেকি কেবলই দুঃখের শ্বাস, লোকে তবে করে কি সুখেরই তরে এমন দুঃখের আশ…
ভালোবাসা! পৃথিবীতে ভালোবাসার চেয়ে মধুর কোন শব্দ খুঁজে পাওয়া যায় কি? হ্যা, যায়। ‘মা’ শব্দটি সমগ্র বিশ্বে সন্দেহাতীতভাবেই সবচেয়ে মধুর, সবচেয়ে আবেগময়। তবে সে আবেগের পেছনে কেবল ভালোবাসারই জয়গান। মায়ের ভালোবাসায় অন্ধকার মাতৃজঠরে একটু একটু করে বেড়ে ওঠে ভ্রুণ, মায়ের ভালোবাসায় নির্ভয়ে শিশু ভূমিষ্ট হয় পাপিষ্ট ধরায়, মায়ের আদরে সোহাগে ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠে পরিপূর্ণ আদম-হাওয়া। তাই, পৃথিবীতে যে কাউকেই জিজ্ঞেস করি না কেন, একই সুর শুনতে পাই, ভালোবাসি মাকে। নির্ভেজাল, নিঃস্বার্থ ভালোবাসা মায়ের আচল ছাড়া মিলে না যে আর কোথাও।
অনেকে ভালোবাসাকে আগুনের সাথে তুলনা করেন, তবে মা বলেন, “ভালোবাসা পানির মতো, নিম্নগামী, পূর্ব পুরুষ থেকে উত্তর পুরুষে প্রবহমান”। তাই কাউকে যদি ভেবে চিন্তে জবাব দিতে বলা হয়, তখন অনেকেই জবাব দেবেন, সন্তানকেই সবচেয়ে বেশী ভালোবাসেন তিনি। সেখানেও ঐ মা-বাবার ভালোবাসারই জয়। Continue reading “প্রেম পরকীয়া প্রতিশোধ প্রতিরোধ”

ভালোবাসার অধিকার দেব না ছেড়ে

মা। মায়ের চেয়ে শ্রুতিমধুর, মায়ের চেয়ে আবেগঘন, মায়ের চেয়ে শক্তিশালী কোন শব্দ পৃথিবীর কোন ভাষাবিদ পেরেছে কি আজো বানাতে? নিশ্চয়ই নয়। এ মায়ের মুখের হাসির জন্য যুগে যুগে দিয়েছে প্রাণ লাখো কোটি তাজা প্রাণ, প্রাণ দিয়েছে মায়ের সম্মানে, মায়ের কল্যাণে, মায়ের অশ্রু মোচনে। মায়ের ভাষার জন্য প্রাণ দিয়েছে সালাম বরকত রফিক জব্বারের মতো বীর সন্তানেরা, জন্মভূমিকে শত্রুমুক্ত করতে জীবনবাজী রেখেছে হামিদুর, মতিউর, জাহাঙ্গীরের মতো লাখো বীর জনতা। Continue reading “ভালোবাসার অধিকার দেব না ছেড়ে”

ভালোবাসা ছিনতাই

কারো ইচ্ছের বিরুদ্ধে তাকে যৌনক্রিয়ায় বাধ্য করাকে বলে ধর্ষণ, সভ্য সমাজে যা শ্লীলতাহানি নামে বেশ পরিচিতি। অবশ্য পাশ্চাত্য সভ্যতা সামাজিকভাবে স্বীকৃত যৌনাচারেও যদি কারো প্রতি জোর খাটানোর চেষ্টা চলে, তবে তা ধর্ষণের মতো শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য হয়, যদিও আমাদের সমাজে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ইচ্ছে-অনিচ্ছে তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়। এভাবে কারো উপর জোর করে কোন কিছু চাপিয়ে দিলে, কারো অনিচ্ছায় কাউকে ভালোবাসতে বাধ্য করলে হয় “স্বাধীনতার বলাৎকার”।

প্রেম ভালোবাসা অতি স্বাভাবিক মানবীয় গুণ, নিয়ন্ত্রিত যৌনাচার সমাজ অনুমোদন করে, ইসলাম অনুমোদন করে, যৌনাচার ছাড়া মানবজাতিই অস্তিত্বহীন। ভালোবাসায় জবরদস্তির সুযোগ নেই, জোর জবরদস্তি ভালোবাসার পানপাত্রে এক ফোটা বিষের মতো, বিষে বিষে সব রং নীলে হারিয়ে যায়, কলঙ্কিত হয় প্রেম, ঘৃণিত সে প্রেমিক। Continue reading “ভালোবাসা ছিনতাই”

ভালোবাসা

“নিন্দার কাঁটা যদি না বিঁধিল গায়ে

প্রেমের কি দাম আছে বল”

ভালোবাসা কাকে বলে? কোন স্বর্গসুধার নাম প্রেম? হাজারো সংজ্ঞায় চিত্রিত বিচিত্র ভালোবাসা। তবু ক্ষুদ্র এ জীবনে ভালোবাসার বিশালতা ধারণ করা দায়। ভালোবাসা ছাড়া আর আছে কী, ভালোবাসাই যে জীবন। যে জীবনে ভালোবাসা নেই, যে জীবনে ঘৃণার আবাদ, সে জীবনের চেয়ে মরণও শ্রেয়।

ভালোবাসার হাজারো রঙ। যে প্রেমিক যত বেশী রঙে রাঙ্গাতে জানে, ভালোবাসার সূরে সূরে জীবনকে সাজাতে জানে, তার চেয়ে সুখী আর কে আছে? যার জীবনস্রোতে ভালোবাসার নীলপদ্ম ভাসে না, তার চেয়ে দূর্ভাগা আর কে আছে?

ভালোবাসার সৌন্দর্য চেনেনা অনেক অন্ধপ্রেমিক, স্পর্শ ছাড়া ভালোবাসার অস্তিত্ব নিয়ে সন্ধিহান ওরা, তাইতো ওরা শরীরের আঁকে বাঁকে ভালোবাসার সৌরভ খোঁজে। অথচ ভালোবাসার বাস তো মনের গহীনে। ভালোবাসার সোনার কাঠি রুপোর কাঠিতে মনের অর্গল খুলতে জানে না যে প্রেমিক তার গলায় দিও না কভু ফুলের মালা। নিন্দার ভয় করে যে প্রেমিক, তার জন্য মনের দূয়ারে দিও তালা।

ভালোবাসার সীমারেখা জানে না যে প্রেমিক, প্রেমের বাগানে ঢুকতে মানা তার। ভালোবাসা সে তো শুধু আল্লাহরই রাহে, শত্রুতা সে তো শুধু আল্লাহরই রাহে। আল্লাহরই রাহে যে ভালোবাসে সে তো পূর্ণ করেছে ঈমান। ভালোবাসার এ শুভক্ষণে এসো গাই ভালোবাসার জয়গান, এসো গাই আল্লাহ নামের গান।

জেগে ওঠো ভালোবাসায়

কে সবচেয়ে ভালো খেলোয়ার? ম্যারাডোনা? নাকি ইমরান খান?

নি:সন্দেহে প্রশ্নটি বিভ্রান্তিকর। কারণ ম্যারাডোনা আর ইমরান খানের মাঝে তুলনা হতে পারে না, দু’জন ভিন্ন স্বাদের দু’টি খেলার মহা নায়ক। বরং ম্যারাডোনার সাথে পেলে কিংবা শচিনের সাথে ইমরান খানের তুলনা চলতে পারে।

ব্যাট হাতে যে পারদর্শিতা দেখাতে পারেন ইমরান খান, “ইশ্বরের হাত” দিয়েও মেরাডোরা তার ধারে কাছে ঘেষতে পারবে বলে বিশ্বাস হয় না, ঠিক তেমনি মেরাডোনার পা থেকে বল কেড়ে নিতে মাইলের পর মাইল দৌড়োতে হতে পারে ইমরান খানের, গোল তো অনেক দূরের কথা। আসলে পৃথিবীতে কেউ সবচেয়ে ভালো খেলোয়ার নয়, কেউ কেউ এক বা একাধিক খেলায় পারদর্শী, সব খেলায় নয়। Continue reading “জেগে ওঠো ভালোবাসায়”

আলোকিত নেতা মওদূদী (রহ:) : শুভ পরিণয়

বারো বছরের কিশোরী মাহমুদা বেগম এক্কা দোক্কা খেলার ছলে পা দিয়ে খুঁড়ে খুঁড়ে ছোট্ট একটা গর্ত তৈরী করেন। গর্তটা থেকে পা উঠিয়ে এবার হাতটি রাখলেন। নরম কাদামাটির গর্তে হাতটি ঢুকাতেই শক্ত পাথরের মতো একটা টুকরোর সাথে হাতে ঠোক্কর লাগে। গর্ত থেকে হাতটি তুলতেই তার চোখ চানাবড়া হয়ে যায়। হাতের তালুতে উঠে আসে জ্বলজ্বলে উজ্জল এক হিরের টুকরো। কিছুতেই দৃষ্টি ফেরানো যায় না অমন হিরে থেকে।

মুহূর্তেই চারপাশে লোক জড়ো হয়ে যায়। সবাই অবাক, এতো সুন্দর হিরে পেল কোথায় মেয়েটা। মুরুব্বীরা সাবধান করে বললো, খুব সাবধানে রাখো হিরেটি বেটি, যত্ন করে রেখো, পাছে আবার কেউ ছিনিয়ে না নেয়। Continue reading “আলোকিত নেতা মওদূদী (রহ:) : শুভ পরিণয়”

প্রাপ্তি বসে আছে নেটের ওপারে, আপনারই জন্য

প্রাপ্তিকে কাছে থেকে দেখার আগ পর্যন্ত কিছুতেই শান্তি পাচ্ছিলাম না। কষ্টটা সারাণ শুধু খুঁচিয়ে মারছিল।
দুপুরে এক পশলা বৃষ্টি হয়ে গেছে, সন্ধ্যায় প্রাপ্তির বাসায় নির্বিঘ্নে যেতে পারবো কি না, এই ভেবে পেরেশান হচ্ছিলাম। ঝড়ো হাওয়ার অফিস মতিঝিলের কোথাও, পরিচয়টা জানা থাকলে হয়তো একসাথে যাওয়া গেত, দু’জন একসাথে থাকলে অন্তত মনে বল পাওয়া যায়।
বিকেল সাড়ে পাঁচটায় অফিস ছেড়ে প্রাপ্তি সোনার বাড়ীর দিকে রওয়ানা হলাম। কিন্তু বিধি বাম, জ্যাম ঠেলে প্রাপ্তির বাসায় যেতে প্রতিটি সেকেন্ডে আমি প্রাপ্তিকে দেখার জন্য অধর্য হয়ে উঠছিলাম। Continue reading “প্রাপ্তি বসে আছে নেটের ওপারে, আপনারই জন্য”

প্রাপ্তির জন্য বুকভরা ভালোবাসা

প্রাপ্তি আমাকে ঘুমুতে দেয় না।
যখন তখন সামনে এসে হানা দেয়, আমার জন্য কি এনেছ চাচ্চু?
আমি লজ্জায় মুখ লুকাই। দারিদ্র আমাকে আষ্টেপৃষ্ঠে বেঁধে রেখেছে।

মাঝে মাঝে দারিদ্র বন্ধুর মতো পাশে এসে শান্তনা দেয়। কাধে হাত রেখে বলে, প্রাপ্তি তোমার কে যে তার জন্য তোমার কিছু করতেই হবে। সমাজে হাজারটা শিশু হাসপাতালে মৃতু্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে, সবারতো আর উপকার করতে পারবে না। প্রাপ্তির জন্য কিছু করতে না পারলে শুধু শুধু কষ্ট পাওয়ার কি আছে? Continue reading “প্রাপ্তির জন্য বুকভরা ভালোবাসা”

বিয়ে ভাবনা

A young man not yet, an elder man not at all- Sir Francis Bacon

বিয়ের বয়স সম্পর্কে নানা মুনির নানা মত। কেউ আগে বিয়ের পক্ষ পাতি আবার কেউ দাদুর বয়েসী না হয়ে বিয়ের পিড়িতে বসতে নারাজ।
অনেকে আবার নিজের পায়ে না দাড়ানো পর্যন্ত বিয়ে করবে না বলে গো ধরে বসে থাকে। এদের উদ্দেশ্যে একটা অশ্লীল বাণী আছে তা হলো (সেন্সরড)।
আবার অনেকে বিয়ের দায়িত্ব বাবা মায়ের কাঁধে তুলে চুটিয়ে প্রেম চালিয়ে যায়, ভাবখানা এমন বিয়ের দায়িত্ব শুধুই অভিভাবকের আর প্রেমের দায়িত্ব নিজের। Continue reading “বিয়ে ভাবনা”

ভালোবাসার সমীকরণ

সবকিছু ভাগ করা যায়, ভালোবাসা ভাগ করা যায় না…
টিভি এ্যাডের কল্যাণে গানটি স্মৃতিতে খোদাই হয়ে গেছে তবে গানের মূল অর্থটি আমার উর্বর মস্তিস্ক বুঝে উঠতে পারেনি।
আসলেই কি ভালোবাসা ভাগ করা যায় না?
মানুষের হৃদয়ে কার স্থান বেশি, ভালোবাসার নাকি ঘৃণার।
বাজি ধরে বলা যায় মানুষের অন্তর ভালোবাসায় পরিপর্ূণ। দুধে পরিপূর্ণ বালতিতে হয়তো মরা মাছির মতো ভেসে বেড়াচ্ছে অস্পৃশ্য ঘৃনা।
এতো যে ভালোবাসা তা কি কখনো একজনের জন্য হতে পারে না হওয়া উচিত। Continue reading “ভালোবাসার সমীকরণ”