আল্লামা সাঈদীর ফাঁসির রায় ঘোষণা দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১: ইসলামের বিরুদ্ধে সরাসরি যুদ্ধের ঘোষণা দিল আওয়ামী জাহেলিয়াত!

বিশ্বনন্দিত আলেমে দ্বীন, মুফাস্‌সিরে কুরআন, সারা বাংলার তৌহিদী জনতার আবেগের কেন্দ্রস্থল বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমীর আল্লামা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ফাঁসির রায় ঘোষণা করেছে। তার বিরুদ্ধে আনীত ২০টি অভিযোগের মধ্যে ৮টি প্রমাণিত বলে জানিয়েছা ট্রাইব্যুনাল। আমরা এ রায় তীব্রঘৃণা ভরে প্রত্যাখ্যান করছি। এ রায়ের বিরুদ্ধে যাতে জামায়াত ইসলামী ও তৌহিদী জনতা কোনরূপ প্রতিক্রিয়া দেখাতে না পারে সেজন্য ফেসবুকসহ বিভিন্ন ওয়েবসাইট বন্ধ করে দিয়েছে।

এই মামলার কিছু আলোচিত দিক:

* আল্লামা সাঈদীর এলাকার কুখ্যাত রাজাকার দেলোয়ার সিকদারকে সাঈদী বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা, অবশেষে মাদ্রাসা বোর্ডের সার্টিফিকেটে তা ভুল প্রমানিত।

* বর্তমানে কলকাতায় অবস্থানরত ভানু সাহাকে ধর্ষনের অভিযোগ অথচ ভানু সাহা বললেন বর্তমান ওলামা লীগ নেতা মোসলেউদ্দীন তাকে ধর্ষন করেছে! সাঈদীর নাম শুনেছেন প্রথম তদন্ত কর্মকর্তার কাছ থেকে।

* জাফর ইকবালের পিতার খুনের আভিযোগ। মামলার সাক্ষী ছিলেন জাফর ইকবাল, জুয়েল আইচ, শাহরিয়ার কবির, দু:খের বিষয় উনারা কেউই আদালতে হাজির হননি! রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি বলছেন উনাদেরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না! যদিও উনাদের সবাইকে সাহাবাগে নিয়মিত দেখা যায়! জাফর ইকবালের মা তার স্বামীর হত্যার বিবরণ দিয়ে একটি বই ও লিখেছেন। অথচ একবারও উনি সাঈদীর নাম উল্লেখ করেননি!

* ৫ নভেম্বর রাষ্ট্রপক্ষের তালিকাভূক্ত সাক্ষী সুখ রঞ্জন সাঈদীর পক্ষে সাক্ষী দিতে আসায় আদালত প্রাঙ্গণ থেকে ডিবি কর্তৃক অপহরণ! যার হদিস এখনো মেলেনি।

* সাঈদী রাজাকার ছিলেন না এই মর্মে পিরোজপুরের সাবেক এমপি জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের সাক্ষ্য প্রদান।

* রাষ্ট পক্ষ সাক্ষীদেরকে মিথ্যা সাক্ষী দিতে প্রলুব্ধকরণের রেকর্ড প্রকাশ।

* মুক্তিযুদ্ধের পুরো সময়টি আল্লামা সাঈদী যশোরে কাটালেও উক্ত এলাকার কাউকে বাদী করা হয়নি! এবং যশোরের যার বাড়ীতে থাকতেন ঐ ভ্দ্রলোককে সাক্ষী হিসাবে নেয়া হয় নি।

* সর্বশেষ ষ্কাইপি কেলেংকারির দায়ে আইসিটির সাবেক বিচারপতি নাসিমের পদত্যাগ।

সরকার চায় শিবির অস্ত্র হাতে তুলে নিক; আমরা চাই ধৈর্যের সাথে মোকাবেলা

নির্যাতনের মাত্রা কোন পর্যায়ে গেলে মানুষ স্বাধীনতার ডাক দেয়? কতটা রক্ত ঝড়লে মানুষ অস্ত্র হাতে তুলে নেয়? কেন বীর বাঙ্গালী স্বাধীনতার যুদ্ধ করেছিল? কেন বাঙ্গালী বিশ্বের অন্যতম সুসজ্জিত সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রুখে দাড়িয়েছিল, অস্ত্র ধারণ করেছিল, লড়াই করেছিল এবং কুকুরের মতো তাড়িয়ে বাংলাদেশ ছাড়া করেছিল? আজ স্বাধীনতার ৪২ বছর পরে তেমনি এক প্রেক্ষাপটে দাড়িয়ে স্বাধীনতা আন্দোলনকে কিছুটা হলেও অনুভব করতে সক্ষম হচ্ছি।

আইন-শৃংখলা বলতে যা বোঝায় তার ছিটে ফোটাও অবশিষ্ট নেই বাংলাদেশে। পুলিশ নামের কুকুরের মতো ভয়ংকর নির্বোধ একটি বাহিনী আছে বাংলাদেশে যা প্রভূর ইশারায় নিমিষেই দন্ত-নখর ছড়িয়ে নির্দেশিত প্রতিপক্ষের ঘাড় মটকে দিতে পারঙ্গম। ন্যূনতম বুদ্ধি-বিবেচনা এখানে একেবারেই মূল্যহীন। প্রভূর পদলেহনেই ভক্তি, পদাঘাতেই মুক্তি। Continue reading “সরকার চায় শিবির অস্ত্র হাতে তুলে নিক; আমরা চাই ধৈর্যের সাথে মোকাবেলা”

মরুভূমি ছাড়া হয় কি মরুদ্যান?

গ্রেফতারকৃত শীর্ষ চার জামায়াত নেতাকে ঈদের আগে মুক্তি না দিলে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালসহ দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা উড়িয়ে দেয়ার হুমকি  দিয়ে আইন কমিশনের ঠিকানায় গত ২৫ আগস্ট ইমেইলই আসে। ৫টি দিন পর ইমেইলটি কর্তৃপক্ষের নজর কাড়তে সক্ষম হয় এবং উড়ো খবরটি আজ পত্রপত্রিকায় গুরুত্বপূর্ণ শিরোনাম হয়ে যায়। এ ঘটনার পর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে বলে পত্রিকার রিপোর্টে জানা গেছে।  ই-মেইলের হুমকির ধরণেই বোঝা যায় খুবই সাধারণ মানের কম্পিউটার ব্যবহারকারী মেইলটি প্রেরণ করেছে, বিশেষ করে ইংরেজীতে তার দূর্বলতা আছে আবার রোমান হরফে বাংলায় লেখা ইমেইল দেখে বাংলায় ইমেইল লেখায় তার অজ্ঞতাও ধরা পরে । চেষ্টা চালালে প্রশাসন হয়তো দু’একদিনের মাঝে হুমকিদাতার নাগালও পেয়ে যাবে যদি না সরকার দলীয় কোন সমর্থক ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের জন্যকাজটি  না করে থাকে। কিন্তু ইমেইলটি যদি সত্যিকার অর্থেই গুরুত্বপূর্ণ হতো, আসলেই যদি ইমেইলের হুমকি সম্পর্কে হুমকিদাতা শতভাগ আন্তরিক হতো এবং তেমন শক্তিধর হতো তবে হয়তো ইতোমধ্যেই বিপর্যয়কর কিছু ঘটে যেতে পারত। আশ্চর্য বিষয় এই যে, যে ইমেইলটিকে খুবই গুরুত্ব দিয়ে নিরাপত্তাব্যবস্থাকে জোরদার করা হলো, পত্র-পত্রিকার শিরোনাম বানানো হলো অথচ সে ইমেইলটি নজরে আসতে ৫টি দিন সময় লেগে গেল? সরকারের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের এহেন দায়িত্বহীনতা অবশ্যই নিন্দনীয় এবং সরকারী আমলা, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের টেলিফোন, চিঠিপত্র, ইমেইল কিভাগে ব্যবহার করতে হয়, কতটুকু গুরুত্ব দিতে হয় তা শেখানো উচিত, নচেত একটা দূর্ঘটা ঘটে যাওয়ার ৫ দিন পর যদি হুমকির চিঠিপত্র উদ্ঘাটিত হয় তবে দেশবাসীর লজ্জার সীমা থাকবে না। Continue reading “মরুভূমি ছাড়া হয় কি মরুদ্যান?”

হাইকোর্টের রায়কে অগ্রাহ্য করে কামারুজ্জামান ও কাদের মোল্লাকে গ্রেফতার

জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লাকে আজ বিকেল সোয়া ৪ টায় হাইকোর্ট চত্তর থেকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। আরেক সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মুহাম্মাদ কামারুজ্জামানকে গ্রেফতার করতে পুলিশ হাইকোর্ট ঘিরে রাখে। মুহাম্মাদ কামারুজ্জামান তার আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাকের চেম্বারে অবস্থান করছিলেন। পরে  তাকেও সোয়া ৬ টায় গ্রেফতার করা হয়। আদলতের রায়কে সম্পূর্ণরূপে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আজ গ্রেফতার করা হলো এ নেতাদের। অথচ আজই কামারুজ্জামান, আব্দুল কাদের মোল্লা, হাজী নাজিমউদ্দিন ও আবুল হোসেনের আগাম জামিনের আবেদন শুনানি ও নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত তাদের গ্রেপ্তার বা হয়রানি না করতে সরকার ও পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। জনৈক আমীর হোসেন মোল্লা বাদী হয়ে পল্লবী থানায় দায়ের করা গণহত্যা মামলায় কাদের মোল্লাকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে দাবী করেছে পুলিশ।

ধীরে ধীরে ইসলামী আন্দোলনকে নেতৃত্ব শূন্য করার পায়তারা চলছে। সরকার নিশ্চিতভাবে ধরেই নিয়েছে যে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের প্রথম কাতারের নেতাদেরকে গ্রেফতার করলেই সরকারের পতনকে ঠেকিয়ে রাখা যাবে। তাই একের পর এক হাস্যকর, মিথ্যে মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে আমীরে জামায়াত, সেক্রেটারী জেনারেল ও নায়েবে আমীরকে। আজ গ্রেফতার করা হলো সহকারী সেক্রেটারী জেনারেল দ্বয়কে। পাশাপাশি দেশব্যাপী প্রতিটি জেলা থেকেই কোন না কোন শীর্ষ নেতাকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়ে জামায়াত ও শিবিরের কর্মী-সমর্থকদের মাঝে আতংক ছড়ানোর চেষ্টা চলছে। দেশব্যাপী গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় সহস্র নেতা-কর্মীকে। Continue reading “হাইকোর্টের রায়কে অগ্রাহ্য করে কামারুজ্জামান ও কাদের মোল্লাকে গ্রেফতার”

জামাত-শিবিরের শক্তির উৎস কোথায়?

হঠাৎ করেই সরকার খড়গহস্ত হয়ে উঠেছে বিরোধীদের উপর, বিশেষ করে জামায়াতে ইসলামীর উপর। বিষয়টি যে একেবারেই হঠাৎ করে ঘটেছে তাও নয় বরং ২০০১ এর র্নিবাচনে আওয়ামী লীগের ব্যাপক ভরাডুবিতে জামায়াতের উল্লেখযোগ্য ভূমিকা থাকায় এবার ক্ষমতায় এসে জামায়াত-শিবির নির্মূলকে আওয়ামী লীগ তাদের রাজনীতির অস্তিস্ত রর্ক্ষাথে প্রধান দায়িত্ব মনে করছে। প্রকৃতপক্ষে এককভাবে এখনো আওয়ামী লীগের জন সমর্থন বেশী, আর বেশী এ কারণে যে আওয়ামী লীগের রয়েছে বড় অংকের হিন্দু রিজার্ভ ভোট। তবে আওয়ামী লীগের অপরাজনীতির কারণে প্রতিনিয়ত একদিকে যেমন তাদের জনপ্রিয়তা কমছে, অন্য দিকে হিন্দুদের সম্পত্তি ব্যাপকভাবে লুটপাটে হিন্দু ভোটারদেরও মোহভঙ্গ হচ্ছে। পাশাপাশি রাজাকার, রগকাটা ইত্যাদি নানাবিধ অপপ্রচারের মাঝেও গঠনমূলক রাজনীতির ময়দান কামড়ে পড়ে থাকা জামায়াত কচ্ছপগতিতে ঠিকই তাদের জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে চলেছে। ফলে রাজনীতির ময়দানে জামায়াতের উপস্থিতি অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। আর জামায়াত ও বিএনপি যখনই ঐক্যবন্ধ আন্দোলন গড়ে তুলেছে ততবারই আওয়ামী লীগ বেকায়দায় পড়েছে।এ কারনেই বিএনপিকে একহাত দেখে নিতে জামায়াতকে যে কোন মূল্যে নির্মূল করতে আওয়ামী লীগ উঠে পড়ে লেগেছে। Continue reading “জামাত-শিবিরের শক্তির উৎস কোথায়?”

মানবতাবিরোধী অপরাধ বিচারের নামে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস

এক সাগর রক্তের বিনিময়ের অর্জিত স্বাধীনতা। দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী সমরে আমাদের প্রত্যাশা ছিল শোষণ মুক্ত, দারিদ্রমুক্ত স্বনির্ভর বাংলাদেশ। যুদ্ধ শেষ হয়েছে প্রায় চল্লিশটি বছর আগে, অথচ স্বাধীনতা নামের সুখপাখিটা আজো আমাদের কাছে অধরাই থেকে গেছে। যে পাকিস্তানী শোষকদের অত্যাচার, নিপীড়ন, বঞ্চনা আর গোলামী থেকে মুক্তি পেতে লড়েছি আমরা, সে দেশের সাধারণ মানুষ আজো গোলামীর জিঞ্জিরে বন্দী। দারিদ্রের ভয়াবহতা বেড়েছে, নির্যাতনের তীব্রতা বেড়েছে, মানবতা বিরোধী অপরাধের মাত্রা বেড়েছে। বেড়েছে বর্ণবাদ, বিভাজন আর হিংসার রাজনীতি। রাজা যায় রাজা আসে, সাধারণ মানুষের তাতে কিই বা যায় আসে। পাকিস্তানী নরপিশাচেরা বিতাড়িত হয়েছে, শাসনের ছড়ি আজ ভাইয়ের হাতে। অথচ সে ভাই ভাতৃত্বের ধার ধারে না, ভাইয়ে ভাইয়ে বিভাজনের মাধ্যমে ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতেই ব্যস্ত। শত্রুর হাতের চাবুকের আঘাত সওয়া যায়, ভাইয়ের হাতে ফুলের আঘাত যে সয় না। অথচ ভাইয়েরা ফুল নয়, চাবুক নয় বরং ময়না কাটায় ক্ষতবিক্ষত করেছে আপন ভাইয়ের শরীর। Continue reading “মানবতাবিরোধী অপরাধ বিচারের নামে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস”

৫ মামলায় নিজামী, মুজাহিদ ও সাঈদীর ১৬ দিনের রিমান্ড

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর, সাবেক সফল কৃষি ও শিল্পমন্ত্রী মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, জামায়াত নায়েবে আমির বিশ্ববরেণ্য ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা দেলাওয়ার হোসেন সাঈদী ও জামায়াত সেক্রেটারি জেনারেল, সাবেক সফল সমাজকল্যাণমন্ত্রী আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদকে ৫টি মামলায় প্রত্যেককে ১৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত। পল্টন থানায় দায়ের করা পুলিশের কাজে বাধা দেওয়ার তিনটি মামলার প্রত্যেকটিতে ৩দিন করে ৯ দিন, রমনা থানায় দায়ের করা পুলিশের কাজে বাধাদান ও গাড়ী ভাংচুরের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ৪ দিন এবং উত্তরা থানায় দায়েরকরা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় ৩ দিন করে মোট ১৬ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। অথচ ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার যে হাস্যকর মিথ্যে মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছিল তাতে তারা জামিন পেয়ে যান। তাদের গ্রেফতারের প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ সারাদেশ। পাশাপাশি চলছে পুলিশী নির্যাতন ও গণগ্রেফতার অভিযান। ইতোমধ্যে খুলনা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে সাবেক এমপি মিঞা গোলাম পরওয়ারকে। ঢাকা সিএমএম আলাদলতের ভেতর থেকেও গ্রেফতার করা হয় অর্ধশতাধিক শিবির নেতাকর্মীকে, দেশব্যাপী গ্রেফতার ৫ শতাধিক। Continue reading “৫ মামলায় নিজামী, মুজাহিদ ও সাঈদীর ১৬ দিনের রিমান্ড”

এভাবেই সাফল্যের বন্দরে পৌঁছাবে জামায়াত

“আর নিশ্চয়ই আমরা ভীতি, অনাহার, প্রাণ ও সম্পদের ক্ষতির মাধ্যমে এবং উপার্জন ও আমদানী হ্রাস করে তোমাদের পরীক্ষা করবো ৷ এ অবস্থায় যারা সবর করে  এবং যখনই কোন বিপদ আসে বলেঃ “আমরা আল্লাহর জন্য এবং আল্লাহর দিকে আমাদের ফিরে যেতে হবে” তাদেরকে সুসংবাদ দিয়ে দাও ৷ তাদের রবের পক্ষ থেকে তাদের ওপর বিপুল অনুগ্রহ বর্ষিত হবে, তাঁর রহমত তাদেরকে ছায়াদান করবে এবং এই ধরণের লোকরাই হয় সত্যানুসারী”। সূরা বাকারা ১৫৫-১৫৭।

আল্লাহ যখন কাউকে ভালো বাসেন, কিংবা কারো দ্বারা কোন মহৎ কাজ করিয়ে নিতে চান, তবে তাদেরকে পরীক্ষায় ফেলে ঈমানকে মজবুত করে নেন। আগুনে পুড়িয়ে খাঁটি সোনা বের করার মতো পরিশুদ্ধির পরীক্ষা। আর যারা সকল বিষয়ে সর্বোচ্চ ও নিরংকুশ ক্ষমতার অধিকারী বলে আল্লাহকে মানে এবং আল্লাহ প্রেরিত সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ রাসূল (সাঃ) দেখানো পথে আল্লাহর জমিনে আল্লাহর দিনকে কায়েম করতে চায় তাদের আন্দোলনের জন্য কঠিন পরীক্ষা অতি স্বাভাবিক ও নিয়মিত বিষয়। বলা যেতে পারে যে আন্দোলন আল্লাহর পক্ষে কথা বলতে গিয়ে যত বেশী অত্যাচারিত নির্যাতিত হয় সে দলই আল্লাহর ততটাই নৈকট্য অর্জনকারী দল। আর কোন ইসলামী দলের কার্যক্রমে মুগ্ধ হয়ে ইসলাম বিরোধী শক্তি যদি আবেগে বুকে টেনে নেয়, ইসলামী আন্দোলন পরিচালনার জন্য অর্থ, জনবল তথা লজিস্টিক সাপোর্ট দিয়ে সহায়তা করে তবে সে দলটি নামে ইসলামী হলেও প্রকৃতপক্ষে সাক্ষাৎ ইবলিশ শয়তানের দল। Continue reading “এভাবেই সাফল্যের বন্দরে পৌঁছাবে জামায়াত”