ভার্সিটি পড়ুয়া সন্তানকে লেখা মায়ের চিঠি

বাবা ছোটন,

আশাকরি পরম করুনাময় অসীম দয়ালু আল্লাহপাকের কৃপায় কুশলে আছ। বেশ কিছুদিন যাবত তোমার কোন খবর না পাইয়া ব্যাকুল মনে এই চিঠি লিখিতে বসিয়াছি, আশাকরি পত্র পাওয়া মাত্র জবাব দিয়া তোমার এই জনম দুঃখিনী মাকে চিন্তামুক্ত রাখিবা।

ঢাকা হইতে তোমার বন্ধু রহমত দেশে ফিরিয়া আমাদের বাড়ী দেখা করিয়া গিয়াছে। তাহার কাছে তোমার কুশলাদি জিজ্ঞাসা করিয়া মনটা ব্যাকুল হইয়া উঠিয়াছে। তুমি নাকি কোন দলের ছাত্র নেতাদের সাথে ওঠাবসা শুরু করিয়াছ শুনিয়া আমার মন দমিয়া গিয়াছে। তোমার মরা বাপের কসম লাগে, রাজনীতি নামের নর্দমা হইতে একশ হাত দূরে থাকিবা, রাজনীতি তোমার মত গরীরের সন্তানের জন্য না, রাজনীতি বড়লোকদের কারবার, তোমার মত গরীর ঘরের সন্তানদের ঘাড়ে পা রাখিয়া ওরা মন্ত্রীমিনিস্টার হইবে, জুতার তলায় পিষিয়া কে মরিল কি বাঁচিল তাতে ওদের কিছুই যায় আসে না। Continue reading “ভার্সিটি পড়ুয়া সন্তানকে লেখা মায়ের চিঠি”

ভ্রুণহত্যা বন্ধ কর

প্রতিটি মানুষের মনের অন্ধকারে ঘাপটি মেরে থাকে এক একটা ভয়ংকর জানোয়ার। সর্বদা সে সুযোগের সন্ধানে থাকে দন্ত নখর বিছিয়ে, শিকার দেখে মুখের লালা ঝরায়। আর মোক্ষম সুযোগটা হাতে এসে গেলে জানোয়ারটা তার বিভৎস রূপ নিয়ে ঝাঁপিয়ে পরে শিকারের উপর, ছিন্ন বিচ্ছিন্ন করে চেটেপুটে খেয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তোলে। তারপর আবার অন্ধকারে ঘাপটি মারা, নতুন কোন সুযোগের অপেক্ষা। Continue reading “ভ্রুণহত্যা বন্ধ কর”