মানুষ না আওয়ামী লীগ?

কতটা নির্মম হলে মানুষ পশুকেও হার মানায়? কতটা নির্দয় হলে শয়তানও লজ্জায় মুখ লুকায়? কুকুরেরও ধর্ম আছে, প্রতিপক্ষ আত্মসমর্পন করলে নির্যাতন বন্ধ করে ওরা। অথচ কি আশ্চর্য, মানুষের মুখোশ এঁটে পাশবিক উল্লাসে মাতে ছাত্রলীগ-যুবলীগ-পুলিশলীগ নামের হিংস্র হায়েনার দল। না, হায়েনা নয় ওরা, হায়েনার পাশবিকতারও সীমা আছে, আওয়ামী রক্ষীবাহিনীর বিভৎসতার কোন সীমা নেই, শেষ নেই। ১২ টি ইসলামী দল আহুত ও প্রধান বিরোধী দল গুলোর সমর্থনে “আল্লাহর উপর অবিচল আস্থা ও বিশ্বাস” রক্ষার দাবীতে ডাকা দেশব্যাপী হরতালে পুলিশ নামের আওয়ামী জানোয়ার আর রক্ষীবাহিনীর সশস্ত্র তান্ডবে স্তম্ভিত বিশ্ববিবেক। বিশ্বজুড়ে আজ একটাই প্রশ্ন, কি হচ্ছে বাংলাদেশে?

Continue reading “মানুষ না আওয়ামী লীগ?”

মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন আওয়ামী লীগের ৪৩ গণপরিষদ সদস্য!!!

স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচিত ৪৩ জন গণপরিষদ সদস্য। আজ ২২ সেপ্টেম্বর ২০১০, বুধবার জাতীয় সংসদের প্রশ্নোত্তর পর্বে আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ এ তথ্য জানান। আইনমন্ত্রী সাধারণত কম কথা বলেন, অবশ্য তার মন্ত্রনালয়ে কামরুল ইসলাম নামের যে কলের গানটি আছে তা  শুধু আইন মন্ত্রণালয় নয়, পুরো সরকারের বলা না বলা কথাগুলো উদ্গীরণ করে যাচ্ছে। তবুও আইনমন্ত্রী মাঝে মাঝেই যে দু’একটি কথা বলেন তা আওয়ামী লীগের অপরাজনীতির মুখোশ উন্মোচনের জন্য যথেষ্ট। এতদিন আওয়ামী লীগ একচেটিয়ে ভাবে মুক্তিযুদ্ধকে যেমন তাদের পৈত্রিক সম্পত্তি দাবী করে আসছিল, আইনমন্ত্রীর এ বক্তব্যে কিছুটা হলেও জোঁকের মুখে নুণের ছিটে লাগবে। যদিও সংসদেই এর তীব্র বিরোধিতা হয়েছে, তোফায়েল আহমেদ আপত্তি জানিয়েছেন এমনকি ডেপুটি স্পিকার শওকত আলীও প্রতিবাদ করেছেন। স্পীকার যে কখনোই নিরপেক্ষ হয় না, নিরপেক্ষতার ঠুনকো ছদ্মবেশ ধারণ করে থাকে তারও একটা নজির হয়ে থাকবে আজকের সংসদ। Continue reading “মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত ছিলেন আওয়ামী লীগের ৪৩ গণপরিষদ সদস্য!!!”

১৫ আগস্ট : অপশাসন মুক্তি দিবস

আজ ঐতিহাসিক ১৫ আগস্ট। বাংলাদেশের ইতিহাসে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ দিন। এ দিনে বাংলাদেশ অর্জন করেছিল সত্যিকারের স্বাধীনতা, মুক্ত হয়েছিল একদলীয় বাকশালের হিংস্র অপরাজনীতি থেকে। দেশ মুক্ত হয়েছিল রক্ষীবাহিনীর অত্যাচার নির্যাতন থেকে। মুক্ত হয়েছিল দালালীর শাসন থেকে। এ দিনে তাই শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি সেসব অকুতোভয় বীর সন্তানদের যারা পরিণামের কোন পরোয়া না করে দেশমাতৃকাকে জালিমের হিংস্র থাবা থেকে মুক্ত করতে জীবনবাজী রেখেছিলেন। হ্যা, দিনটি বাংলাদেশের জন্য যদিও তাৎপর্যপূর্ণ, তবুও এ দিনটিতে অনাকাংখিতভাব নিহত হন শেখ মুজিবের পরিবারের কয়েকজন নারী ও শিশু, যাদের কেউ কেউ নিরপরাধ ছিলেন। এসকল নিরপরাধ নারী ও শিশুদের আত্মার শান্তি কামনা করি। তবে এ কথা অনস্বীকার্য যে, বৃহৎ কোন প্রাপ্তিতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র ক্ষতিকে মেনে নিতে হয়। Continue reading “১৫ আগস্ট : অপশাসন মুক্তি দিবস”