আদম আলী মাস্টারের সংসার

ভরদুপুরটাকে মাথায় নিয়ে বাসায় ফেরেন আদম আলী। সঙ্গে আবার কোত্থেকে জুটিয়েছেন সুটেড বুটেড এক ভদ্রলোককে। দেখেই মেজাজটা খারাপ হয়ে যায় লাকীর মা’র। নিজের আক্কেল বুদ্ধি এখনও পাকে নাই, হাজার হাজার পোলাপান মানুষ করে কেমনে খয়রাইত্যা মাস্টারে?

লাকীর মা। আদম আলীর স্ত্রী। বিয়ের আগে একটা নামও ছিল, স্কুলের সখীরা আহাদ করে নামের সাথে লেজও জুড়ে দিত কিন্তু লাকীর জন্মের পর সে নাম কোন আস্তাকুড়ে যে হারিয়ে গেছে তার আর কোন খোঁজ নেই। স্কুলের গন্ডি পেরোনোর আগেই বিয়ে হয়ে যায় দশগ্রাম দূরের এক বেসরকারী কলেজ মাস্টার আদম আলীর সাথে। বিয়েতে অবশ্য তার কোন আপত্তি ছিল না বরং এক মাস্টারের সাথে বিয়ে হবে এমন স্বপ্ন দেখতেই তার ভালো লাগতো। Continue reading “আদম আলী মাস্টারের সংসার”

ভালো থেকো বাবা

ঝড়ো হাওয়ার আজকের লেখাটি পড়ে মনটা খারাপ হয়ে গেল। বার বার অতীতে ফিরে যাচ্ছি, কিছুতেই মন ভালো হচ্ছে না। কিছু কিছু কষ্টের স্মৃতি সবার সাথে শেয়ার করতে ইচ্ছে করছে।
বারবার বাবার কথা মনে পড়ছে। চাকুরীর জন্য তার সাথে আমার তিনশ কিলো দূরত্ব। আর বছর খানেক পর তার চাকুরীর মেয়াদ শেষ হবে, তারপর আমরা একসাথে সুখ দুঃখ ভাগাভাগি করতে পারবো, এই ভেবেই সময় পার করছি।
আমার বাবা। আমার জীবনে দেখা অন্যতম শ্রেষ্ঠ সত্যনিষ্ঠ ও আদর্শ পুরুষ। একটি গৃহস্ত পরিবারে জন্ম নিয়ে মাত্র তিন বছরেই বাবাকে হারান। নানা প্রকিকূলতাকে জয় করে কৃতিত্বের সাথে স্নাতকোত্তর ডিগ্রী নিয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন।
তার কর্মজীবন শুরু হয় স্কুলে শিক্ষকতা দিয়ে। একজন সফল ও আদর্শ শিক্ষক বিশেষ করে প্রধান শিক্ষক হিসেবে তাঁর কর্মস্থলে আজো কিংবদন্তী হয়ে আছেন। Continue reading “ভালো থেকো বাবা”