বিয়ে ভাবনা (দুই) : উপযুক্ত বয়সে বিয়ে রোধ করতে পারে যৌনসন্ত্রাস

বিয়ের উপযুক্ত বয়স কোনটি? প্রাপ্তবয়স্ক একটি বালক অথবা একটি বালিকা যখন তীব্রভাবে যৌনমিলনে আকাঙ্খী হয়, তবে সে সময়টিই তার বিয়ের সবচেয়ে উপযুক্ত সময়। এ শুভক্ষণটি কারো জন্য ১২ বছরে হতে পারে, কারো জন্য ১৫ বছরে, কারো বা ১৮ বছরে আবার কারো সারা জীবনে নাও হতে পারে। এক কথায়, যৌনমিলনে শরীর ও মনের উপযুক্ততাই বিয়ের সঠিক বয়সের মাপকাঠি। বিয়ের সময় হয়েছে কি না, বিয়ের জন্য শরীর ও মন প্রস্তুত কি না তা সবচেয়ে ভালো বুঝতে পারে ব্যক্তি নিজেই। যদিও কেউ কেউ আছে মন বিষন্ন করে বসে থাকে, কোন কাজে মন বসাতে পারে না, মহাশুন্যের মতো হৃদয়জুড়ে হাহাকার নিয়ে ঘুরে বেড়ায়, কারনে অকারনে প্রাণখুলে কাঁদতে ভালোবাসে, এমন সব উপসর্গের পরও যারা বুঝতে পারে না যে আসলে মন নয়, বরং না পাওয়ার যন্ত্রণাই তার মনোযাতনার কারন, সে সকল বালক-বালিকাদের অভিভাবকদের সচেতনতা জরুরী। আর সবচেয়ে বড় কথা অভিভাবকরা তো এ সময়টা পার করেই বুড়ো হয়েছেন, তাদের নতুন করে মিলনের গল্প শোনানের কোন মানে নেই। Continue reading “বিয়ে ভাবনা (দুই) : উপযুক্ত বয়সে বিয়ে রোধ করতে পারে যৌনসন্ত্রাস”

নাচগানের জন্য মাইকে আজান বন্ধ!

অলীদ ইবনে মুগীরাহ , আস ইবনে ওয়ায়েল , আসওয়াদ ইবনুল মুত্তালিব ও উমাইয়া ইবনে খালফ নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে সাক্ষাত করে বলেন : “ হে মুহাম্মাদ ! এসো আমরা তোমার মাবুদের ইবাদাত করি এবং তুমি আমাদের মাবুদদের ইবাদাত করো। আর আমাদের সমস্ত কাজে আমরা তোমাকে শরীক করে নিই। তুমি যা এনেছো তা যদি আমাদের কাছে যা আছে তার চেয়ে ভালো হয় তাহলে আমরা তোমার সাথে তাতে শরীক হবো এবং তার মধ্য থেকে নিজেদের অংশ নিয়ে নেবো। আর আমাদের কাছে যা আছে তা যদি তোমার কাছে যা আছে তার চাইতে ভালো হয় , তাহলে তুমি আমাদের সাথে তাতে শরীক হবে এবং তা থেকে নিজের অংশ নেবে। ” একথায় মহান আল্লাহ আল কাফেরুন সূরাটি নাযিল করেন। ( ইবনে জারীর ও ইবনে আবী হাতেম । ইবনে হিশামও সীরাতে এ ঘটনাটি উদ্ধৃত করেছেন।) এ সূরা নাজিলের মাধ্যমে স্পষ্ট হয়ে যায় যে সত্য আর মিথ্যার আপোষ সম্ভব নয়, ইসলামের সাথে ব্রাহ্মণ্যবাদকে গুলিয়ে ফেলার কোন সুযোগ নেই। Continue reading “নাচগানের জন্য মাইকে আজান বন্ধ!”

শিশুদের বিকলাঙ্গ করে ভিক্ষাবৃত্তি ও কিশোরীদের পতিতাবৃত্তিতে বাধ্যকারী আওয়ামী গডফাদার গ্রেফতার

Continue reading “শিশুদের বিকলাঙ্গ করে ভিক্ষাবৃত্তি ও কিশোরীদের পতিতাবৃত্তিতে বাধ্যকারী আওয়ামী গডফাদার গ্রেফতার”

যৌনসন্ত্রাস প্রতিরোধে শালীনতা

অবশেষে যৌনসন্ত্রাস প্রতিরোধে শালীনতাকেই প্রাধান্য দিলেন প্রধানমন্ত্রী। বেগম রোকেয়া দিবস ২০১০ উপলক্ষে ০৯ ডিসেম্বর ২০১০, বৃহস্পতিবার ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে ক্ষোভের সাথে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “অতি আধুনিকতার নামে এক শ্রেণীর নারী পোশাক-পরিচ্ছদ ও চলাচলে নিজের আব্রু রক্ষার প্রয়োজন মনে করে না, এটা ঠিক নয়। আমি মনে করি শালীনতা বজায় রেখে সব কাজকর্ম করা সম্ভব।” সাম্প্রতিককালে সরকারের ইসলাম বিরোধী কিছু তৎপরতা, বিশেষ করে নতুন শিক্ষানীতি ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে ইমামদের সামনে অশ্লীল ব্যালে ড্যান্স প্রদর্শনসহ বিভিন্ন কারণে যখন দেশের আলেম সমাজ ও ইসলামপ্রিয় জনতা আওয়ামী সরকারের বিরুদ্ধে তীব্র গণআন্দোলনে গড়ে তুলছে, সে সময়ে প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্য কিছুটা হলেও সরকারের ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধারে সহায়ক হবে বলে মনে হয়। তবে রাজনীতির কৌশল হিসেব তথা আলেমসমাজকে বিভ্রান্ত করার জন্য নিছক বলার স্বার্থে বলা যদি হয়ে থাকে তবে বিপদ, বিশেষ করে ক্ষমতায় গেলে কোরআন-সুন্নাহ বিরোধী কোন আইন করা হবে না বলে মহাজোট গঠনের সময় খেলাফত আন্দোলনের সাথে যে চুক্তি করা হয়েছিল পরে তা শ্রেফ রাজনৈতিক ছলচাতুরি বলে প্রতিয়মান হয়েছে এবং আওয়ামী লীগ বামদের চাপে চুক্তি প্রত্যাখ্যান করেছিল, তা আলেম সমাজের ভুলে যাওয়া উচিত নয়। Continue reading “যৌনসন্ত্রাস প্রতিরোধে শালীনতা”