জেল থেকে জেলে : মাহমুদুর রহমানের কলাম

সাত নম্বর সেলের দুই নম্বর কুঠুরি থেকে নিষ্পলক তাকিয়ে থাকতাম ঘণ্টার পর ঘণ্টা

Mahmudur Rahmanআজ জুলাইর প্রথম প্রভাত। ইংরেজি সন ২০১০। বাংলা তারিখ ১৭ আষাঢ় ১৪১৬। জীবন আর মৃত্যুর একেবারে সীমান্তে দাঁড়িয়ে তিরিশটি দিন পার করার পর প্রথমবারের মতো কিছু একটা লিখতে ইচ্ছে করছে। না, কোনো প্রাণঘাতী অসুস্থতায় আক্রান্ত হইনি। তবে, আমাকে বাঁচিয়ে রাখা হবে কি-না, এ নিয়ে সরকারের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারক পর্যায় যে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছিলেন, সেটি এই একটি মাস প্রতিটি মুহূর্তে মর্মে মর্মে অনুভব করেছি। মনের ভেতরে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রত্যাবর্তনের প্রস্তুতি সবিনয়ে সাঙ্গ করে রেখেছিলাম। যে অসহায় মা এবং স্ত্রীকে ঘরে রেখে গ্রেফতার হয়েছি, তাদের সঙ্গে আর কোনোদিন দেখা হবে না এমন আশঙ্কায় হৃদয় ভেঙে-চুরে গেলেও অনেক চেষ্টায় বাইরে থেকে অবিচল থেকেছি। অবশ্য তাদের সঙ্গে মুক্তজীবনে কতদিন পর আবার দেখা হবে, সেটিও মহান আল্লাহতায়ালাই জানেন। আমাকে গ্রেফতার এবং রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতনে ক্ষমতাসীনদের বিদেশি মুরব্বি রাষ্ট্রগুলোর শতভাগ সমর্থন থাকলেও একেবারেই শেষ করে দেয়া নিয়ে সম্ভবত তাদের মধ্যে মতদ্বৈধ রয়েছে। সে কারণেই আমাকে হত্যার কাজটা শুরু করেও সমাপ্তি টানা হয়নি। সবচেয়ে বড় কথা, আল্লাহ এখনও তাঁর এই অকিঞ্চিত্কর বান্দাকে নিজের কাছে ফিরিয়ে নেয়ার সময় নির্ধারণ করেননি। Continue reading “জেল থেকে জেলে : মাহমুদুর রহমানের কলাম”

নেংটি ধরে কে টানে রে?

“নেংটোর নেই বাটপারে ভয়” কথাটি সবাই জানে। তবুও সবারই নিরন্তন প্রচেষ্টা লজ্জা ঢাকার। তাইতো প্যান্ট-পাজামা, লুঙ্গি-ধুতি কত কিছুর আয়োজন। এক্ষেত্রে যার যত ছোট পরিধেয় তার তত বেশী লজ্জা নিয়ে টেনশন। তবু শখ করে কেউ কেউ আবার নেংটি পড়ে, হয়ে যান মহাত্মা গান্ধী। তবে নেংটি পড়লেই তো আর মহাত্মা হওয়া যায় না, তাই নেংটি বাঁচাতেই দিনরাত গলদঘর্ম হন অনেকেই। এরকমই নেংটি পড়ে বাংলাদেশের বিচারবিভাগ প্রতিনিয়ত লোক হাসাচ্ছে। প্রতি মুহুর্তে নেংটি ভেদে আদালতের মান সম্মান বেড়িয়ে পড়ছে, আর “আদালত অবমাননায়”  হারে রেরে রেরে রবে টুপি চেপে ধরছে যার তার, যখন তখন। একবারও তাদের মনে হয় না পোষাকটাকে আরেকটু বড় করা যায়, একবারও তাদের মনে হয় না টুটি চেপে ধরে মান-সম্মান বাঁচানো দায়।

Continue reading “নেংটি ধরে কে টানে রে?”

তবুও তো প্রাণে বেঁচে আছেন মাহমুদুর রহমান

হ্যা, এ যাত্রায় বোধ হয় প্রাণে বেঁচে যাবেন মাহমুদুর রহমান।  উত্তরা থানায় দায়ের করা সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলায় ৪ দিনের রিমান্ড শেষে আজ আদালত মাহমুদুর রহমানকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেয়। বিগত দিনগুলোর আইনী হেফাজতে পৈশাচিক নির্যাতনে বিধ্বস্ত মাহমুদুর রহমান সহ্যের শেষ সীমায় পৌছে যাওয়ায় আদালত আপাতত তাকে পরবর্তী নির্যাতনের জন্য প্রস্তুত হওয়ার অবসর দিয়েছে আজ। আদালত অবশ্য পুলিশকে তাদের নির্দেশের কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাইকোর্টের নির্দেশ মেনে চলতে বলেছেন আদালত। গত ৭ জুন মহানগর হাকিম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া রিমান্ডে অত্যন্ত সতর্কতার সাথে মাহমুদুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করার আদেশ দিয়েছিলেনContinue reading “তবুও তো প্রাণে বেঁচে আছেন মাহমুদুর রহমান”

হোমার নেই, তবু বেঁচে রয় ইলিয়াড

Stop worrying about
what your eyes can and cannot see,
and just open your heart.
From there, you can see perfectly.
Don Iannone

মানুষ মরণশীল। সবাইকেই মৃত্যুর স্বাদ গ্রহণ করতে হবে, এ সত্যটিকে কেউ অস্বীকার করে না। পৃথিবী পরিভ্রমনে তাই শত সহস্র কোটি মানুষের মাঝে অনেকেই দ্রুত হারিয়ে যায় সময়ের অতল গহ্বরে।  এর মাঝেও দু’য়েক জন সময়কে ধারণ করে বেঁচে রয় সহস্রাব্দ ধরে, কিংবা তারো বেশী সময়। হোমার এদেরই একজন। খৃষ্টপূর্ব অষ্টম শতাব্দীতে জন্ম নেয়া জন্মান্ধ এ কবি আজো সাহিত্য প্রেমিদের মাঝে বেঁচে আছেন স্বমহিমায়। প্রতিনিয়ত তার বাড়ছে গুনগ্রাহী, বাড়ছে সাহিত্যের কদর, বাড়ছে অমরত্ব। Continue reading “হোমার নেই, তবু বেঁচে রয় ইলিয়াড”

চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করলেই কি মেনে নেব বাকশাল?

খবরটা পড়ে স্তম্ভিত হয়ে পড়বে যে কেউ। এ কোন দেশে বাস আমাদের? কোন সভ্য মানুষ কি ভাবতে পারে আধুনিক সভ্যতার এ যুগে উলঙ্গ করে অত্যাচারের কথা? অথচ তাই ঘটছে বাংলাদেশে। যেন তেন কেউ নন, বরং সরকারেরই সাবেক জ্বালানী উপদেষ্টা, দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের চোখ বেঁখে উলঙ্গ করে নির্মমভাবে নির্যাতন করে ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে হাকিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। আর এ সবই করা হচ্ছে আইনী হেফাজতের নামে। এ কেমন আইন, এ কেমন আইনী হেফাজত? Continue reading “চোখ বেঁধে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করলেই কি মেনে নেব বাকশাল?”

বাক স্বাধীনতা হরণের নথিপত্র

দৈনিক আমার দেশ পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, একথা সবাই জানে। বন্ধ করা হয়েছে পত্রিকাটির প্রকাশকের দেয়া একটি প্রতারণা মামলায়, তাও সবার জানা। মামলাটি দিতে বাধ্য করতে গোয়েন্দা বাহিনী বন্দী করে রাখেন তাকে এবং সাদা কাগজে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করে, যা দিয়েই পরবর্তীতে মামলা হয়, একথাও জানা।

পত্রিকাটি প্রকাশক ছাড়াই প্রকাশিত হচ্ছিল, প্রকাশক স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করার পরও তার নাম ব্যবহৃত হচ্ছিল, এমন অভিযোগে পত্রিকার প্রেসে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়, গ্রেফতার করা হয় সম্পাদককে, দেয়া হয় বিভিন্ন মামলা। কিন্তু এ কথা এখন সবাই জানে কিভাবে কয়েক মাস ধরেই ফাঁদ পাতা শুরু হয় পত্রিকাটির কন্ঠ রোধ করার জন্য। পত্রিকার প্রকাশকের পদত্যাগপত্র গৃহীত হলেও প্রকাশক হিসেবে মাহমুদুর রহমানকে মানতে প্রস্তুত ছিল না সরকার। ফলে প্রকাশকের বিষয়টি ফায়সালা না করে ঝুলিয়ে রাখা হয় সময় সুযোগমতো মোক্ষম আঘাতটি হানার জন্য, তা এখন সবার কাছেই স্পষ্ট। আসুন একবার দেখে নেই দৈনিক আমার দেশ বন্ধের নথিপত্র যা ফেসবুক থেকে সংগৃহীত।

Continue reading “বাক স্বাধীনতা হরণের নথিপত্র”

যমের সাথে লড়ছেন মাহমুদুর রহমান

প্রতি নি:শ্বাসে, মৃত্যুর দিন গুণছেন ‘দৈনিক আমার দেশ’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও সাবেক জ্বালানি উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান।  কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আদালতের অনুমতি নিয়ে মাহমুদুর রহমান নিজের পক্ষে নিজেই শুনানিকালে তাকে হত্যা করা হতে পারে এমন আশংকা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, তিনি টের পেয়েছেন সরকার ক্ষমতায় থাকাবস্থায় তাকে জীবিত অবস্থায় কারাগার থেকে বের হতে দেবে না।” এমনকি কারাগারে তার মৃত্যুর পরে তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি খেয়াল রাখতে দেশবাসীর প্রতিও তিনি অনুরোধ জানান। Continue reading “যমের সাথে লড়ছেন মাহমুদুর রহমান”

মিডিয়া দমনে বাংলাদেশের সুনাম (?) বাড়ছে

নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক “Committee to Protect Journalists” তাদের বিশেষ রিপোর্ট “Getting Away With Murder” -এ বিভিন্ন দেশে সাংবাদিক হত্যা ও হত্যাকারীদের অব্যহতির প্রতিবেদন তুলে ধরে। এতে বাংলাদেশের অধ:গতি পরিলক্ষিত হয়। ২০০৯ এর রিপোর্টে বাংলাদেশের অবস্থান যেখানে ১২ তম ছিল সেখানে আরেকধাপ এগিয়ে এবার ১১তম স্থান দখল করে নিয়েছে। অসম্ভব নয় সাংবাদিক দমন নিপীড়নে অচিরেই বাংলাদেশ ১ম স্থান অধিকার করবে। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি গত বছরের এপ্রিলে 10 Worst Countries to be a Blogger শিরোনামে যে রিপোর্ট ছাপে তাতে বাংলাদেশের অবস্থান না থাকলেও যে সকল সূচক দিয়ে রিপোর্টটি তৈরী করা হয়েছে তার কয়েকটি সূচকে ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ যথেষ্ট পারদর্শীতা অর্জন করেছে। সূচক গুলি পাঠকের সুবিধার্থে তুলে ধরছি: Continue reading “মিডিয়া দমনে বাংলাদেশের সুনাম (?) বাড়ছে”

পিলখানা হত্যাযজ্ঞের রিপোর্ট প্রকাশের জন্য নিষিদ্ধ হলো দৈনিক আমার দেশ

বন্ধ হয়ে গেল অত্যন্ত জনপ্রিয় বাংলা পত্রিকা দৈনিক আমার দেশ। গ্রেফতার করা হলো পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে। অত্যন্ত হাস্যকর অভিযোগ দিয়ে গ্রেফতার করা হলো তাকে। তাকে গ্রেফতারের জন্য আগেই পত্রিকাটির প্রকাশক হাশমত আলী হাসুকে গোয়েন্দা সংস্থা গ্রেফতার করে দীর্ঘ ৫ ঘন্টা আটকে রেখে দু’টি সাদা কাগজে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করে। পরে ঐ স্বাক্ষরিত কাগজের মাধ্যমে মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রতারণা মামলা দায়ের করা হয় এবং আজ ভোর রাতে তাকে গ্রেফতার করা হলো। এর আগে রাত ১১টার সময় পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হয়। প্রতারণার অভিযোগে শুধু মাহমুদুর রহমানকে গ্রেফতার করা হলে বিষয়টি সাধারণ মানুষকে কিছুটা হলেও বিভ্রান্ত করতে পারতো কিন্তু পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়ায় সরকারের হীণ উদ্দেশ্য স্পষ্ট হয়ে ওঠে।

তাহলে এমন কি ঘটেছে যে কারণে বন্ধ হলো পত্রিকাটি? ঘটনার আড়ালের ঘটনাই বা কি? এর উত্তর খুঁজতে একটু পেছনের দিকে তাঁকাতে হয়। কয়েকদিন আগে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানা, প্রধানমন্ত্রীর ছবি বিকৃতভাবে উপস্থাপনের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক ওয়েবসাইট ও বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বাধিক ব্যবহৃত ওয়েবসাইট ফেসবুক সরকার বন্ধ করে দেয়। এরও কিছু আগে ভিজিও ব্লগ ইউটিউবও সরকার নিষিদ্ধ করেছিল। এ সবগুলো ঘটনা একই সূত্রে গাঁথা, একটাই মাত্র সুস্পষ্ট কারণে এসব পত্রিকা ও ওয়েবসাইট নিষিদ্ধ হলো। Continue reading “পিলখানা হত্যাযজ্ঞের রিপোর্ট প্রকাশের জন্য নিষিদ্ধ হলো দৈনিক আমার দেশ”

আমার দেশ সম্পাদকের বিরুদ্ধে কাপুরুষোচিত মিথ্যা মামলার তীব্র নিন্দা জানাই

দৈনিক আমার দেশ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানের বিরুদ্ধে প্রকাশক হাশমত আলী হাসুকে প্রতারণা মামলা করতে বাধ্য করেছে সরকারী গোয়েন্দা সংস্থার কর্মকর্তারা। সকালে বাসা থেকে তুলে নেয়ার (নাকি অপহরণ?) পর সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত তাকে এনএসআইয়ের দপ্তরে বসিয়ে রাখা হয়। গোয়েন্দারা তাকে দু’টি কাগজে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করে বলে আগেই অভিযোগ করেছেন মাহমুদুর রহমান।
একজন নির্ভিক কলম সৈনিকের বিরুদ্ধে এমন কাপুরুষোচিত সরকারী ষড়যন্ত্রের তীব্র নিন্দা জানাই।

সূত্র

আমার দেশ: সম্পাদকের বিরুদ্ধে প্রকাশকের প্রতারণা মামলা

আমার দেশ বন্ধের ষড়যন্ত্র চলছে: মাহমুদুর রহমান

আমার দেশ প্রকাশক আটক