মানবাধিকার প্রতিবেদন ২০১০ (আসক)

২০১০ সালে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির চিত্র ফুটে উঠেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের প্রতিবেদনে। আসুন দেখে নেই বাকশালের জাগরণের যুগে দেশের আইন-শৃংখলা ও মানবাধিকার পরিস্থিতি।

* কমপক্ষে ৬২৬ নারী ধর্ষিত হয়েছে, যার মধ্যে গণধর্ষণের শিকার ২১৯ জন। ধর্ষণে মৃত্যু হয়েছে ৭৯ জনের, আত্মহত্যা করেছেন ৭ নারী, আইন প্রয়োগকারী সংস্খার সদস্যের হাতে ধর্ষিত ৮।
* ইভটিজিংএর কারণে ৩১ নারীর আত্মহত্যা, নারী নির্যাতনের কারণে আত্মহত্যা করেছেন এক পিতা, যৌন নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় নিহত হয়েছেন আরো ২০ জন।
* পারিবারিকভাবে নির্যাতিত হন ৩৯৭ জন নারী, যাদের মধ্যে নিহত হন কমপক্ষে ২৮৮ নারী, ৫১ জন আত্মহত্যা করেন।
* ৭৭ জন গৃহপরিচারিকা খুন।
* ৯৩ নারী অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার, যাদের একজনকে ধর্ষণের পর আক্রান্ত হয়।
* কারা হেফাজতে মৃত্যু হয় ৭৪ জনের।
* নিরাপত্তা হেফাজতে মৃত্যু ১৩৩ যার মধ্যে ক্রসফায়ারে মৃত্যু ৯৩।
* কমপকক্ষে ৩০০ সাংবাদিক নির্যাতিত হন।
* বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডে প্রাণ হারার কমপক্ষে ১৩৩ জন।
* সীমান্ত সংঘাতে মৃত্যু ২০৫।
* সাংবাদিক নির্যাতন ৩০১ জন, যার মধ্যে খুন হন ৪ জন।
* ১৪৪ ধারা জারি ১৫২ বার।
* ৪৩৬টি রাজনৈতিক সহিসংতায় নিহত হন ৭৫ জন, ৭১০৩ জন আহত হন।
* আওয়ামী লীগের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুন কমপক্ষে ৪০, আহত ২৯০৭ জন।
* আইন-শৃংখলা বাহিনীর হাতে রাজনৈতিক নির্যাতনে আহত ৪২৮, নিহত ১।
* ২,২৭৯ জন বাংলাদেশী বিদেশ থেকে ফেরেন লাশ হয়ে।
* জনশক্তি রপ্তানি কমেছে ২০ শতাংশ।

ইভ টিজিং, পরকীয়া : ধর্মনিরপেক্ষ বিষবৃক্ষের ফল

নারীর কোন অঙ্গ সবচেয়ে আকর্ষণীয়? শিরোনামে কিছুদিন আগে ইভ-টিজিং প্রতিরোধে একটি  ব্লগ লিখেছিলাম। সম্ভবত আমি এটি বুঝাতে ব্যর্থ হয়েছি যে, মুক্ত-স্বাধীন ষাড়ের জন্য শুধু খোয়াড়ে আটকানোর বিধান করলেই হবে না বরং ষাড়গুলো যে লালরঙা রুমাল দেখে ক্ষেপে যায় তা প্রদর্শনও বন্ধ করতে হবে। “লাল রঙ্গের রুমাল গলায় বাঁধা আমার অধিকার” এ গোঁ ধরে আমরা যদি ষাড় গরুর গুতো খাই তাতে হয়তো ষাড় গরুটাকে খোয়াড়ে আটকানো যেতে পারে, পেটানো যেতে পারে, কষাইয়ের চাপাতির তলে টুকরো টুকরো করা যেতে পারে, তবে ষাড়ের গুতোয় যে ভবলীলা সাঙ্গ হলো তা কিন্তু আর পুনরুদ্ধার হওয়ার নয়। তাই ষাড় গরুর গুতো থেকে বাঁচতে শুধু ষাড় দমন আইন করলেই হবে না বরং ষাড় ক্ষেপে যায় এমন সব আচরণ থেকেও আমাদের বিরত থাকা প্রয়োজন। এ কথাগুলোই খোলামেলা আলোচনা করেছিলাম, যাতে সবাই সহজে বুঝতে পারে। এছাড়া বিষয়টিকে বখাটেদের দৃষ্টিকোণ থেকে বিশ্লেষণ করার চেষ্টা করেছি যাতে সবাই বখাটেদের থেকে নিজেদেরকে নিরাপদ রাখতে পারে। Continue reading “ইভ টিজিং, পরকীয়া : ধর্মনিরপেক্ষ বিষবৃক্ষের ফল”

নরপশুদের পাথর নিক্ষেপে হত্যার অনুমতি চাই

“ব্যভিচারিনী ও ব্যভিচারী উভয়ের প্রত্যেককে এক শত বেত্রাঘাত করো৷ আর আল্লাহর দীনের ব্যাপারে তাদের প্রতি কোন মমত্ববোধ ও করুণা যেন তোমাদের মধ্যে না জাগে যদি তোমরা আল্লাহ ও শেষ দিনের প্রতি ঈমান আনো ৷ আর তাদেরকে শাস্তি দেবার সময় মু’মিনদের একটি দল যেন উপস্থিত থাকে ৷ ব্যভিচারী যেন ব্যভিচারিনী বা মুশরিক নারী ছাড়া কাউকে বিয়ে না করে এবং ব্যভিচারিনীকে যেন ব্যভিচারী বা মুশরিক ছাড়া আর কেউ বিয়ে না করে ৷ আর এটা হারাম করে দেয়া হয়েছে মু’মিনদের জন্য”। সূরা আন-নূর আয়াত ২-৩

কতটা অসভ্য হলে, কতটা নির্মম হলে কাউকে নরপশু বলা যায়? বাংলা ভাষায় নিকৃষ্ট মানুষকে বিশেষিত করার উপযুক্ত শব্দের বড়ই অভাব। কখনো কখনো মানুষ অপরাধের এতটাই অতলে ঢুবে যায় যে তাকে নরপশু বলে বিশেষিত করলে পশুদেরও অপমান করা হয়। মানুষ এতটাই নীচে নামতে পারে যে কুকুর কিংবা হায়েনার পক্ষে অতটা অসভ্য হওয়াও অসম্ভব। Continue reading “নরপশুদের পাথর নিক্ষেপে হত্যার অনুমতি চাই”