হৃদয়ে লেখ নাম, সে নাম রয়ে যাবে

হঠাৎ করেই ব্যাংকের কাউন্টারগুলোতে হৈ চৈ শুরু হয়ে যায়। ব্যাংকার, গ্রাহক উভয়ই মারমুখী। খুব সাধারণ বিষয় নিয়ে বাকবিতন্ডা, অথচ দু’পক্ষই নিজেদের যুক্তিতে অনঢ়। গ্রাহকের দাবী টাকার বান্ডিল সেলাই করে দিতে হবে, অপরদিকে ব্যাংকের যুক্তি টাকা সেলাই করা যায় না, বাংলাদেশ ব্যাংকের কড়া নিষেধাজ্ঞা আছে। তবু গ্রাহককে কিছুতেই থামানো যায় না, আর যাবেই বা কি করে, টাকার ক্ষেত্রে বাপকেও বিশ্বাস করা যায় না, সেখানে ব্যাংকতো অনেক দূরের বিষয়। ইদানিং ব্যাংকের বান্ডিলেও জাল টাকা পাওয়া যাচ্ছে, এমনকি ডাচ-বাংলার এটিএম বুথে জাল টাকা বেরোচ্ছে এমন সংবাদ পত্রপত্রিকায় ফলাও করে প্রচারিত হচ্ছে। আর একবার গ্রাহকের হাতে টাকা  চলে গেলে জাল টাকার দায় ব্যাংক নিতে রাজি নয়, কারন ব্যাংকের যুক্তি গ্রাহককে গুণে বুঝে কাউন্টারে বসে অভিযোগ দিতে হবে, কাউন্টার ত্যাগের পর বান্ডিলে গ্রাহক কিংবা তৃতীয় কোন পক্ষ সুকৌশলে জাল নোট গুজে দিতে পারে, তাই তার দায় কিছুতেই ব্যাংকের নয়। তবে যারা নিয়মিত ব্যাংকে যান বিশেষ করে যারা ব্যবসায়ী তারা জানেন, ব্যাংকের কাউন্টার থেকে লাখ লাখ টাকা নিয়ে তা কিছুতেই কাউন্টারে বসে কাউন্ট করা সম্ভব নয়, পরবর্তী গ্রাহকরাতো আর অনন্তকাল অপেক্ষা করে থাকতে চাইবে না। Continue reading “হৃদয়ে লেখ নাম, সে নাম রয়ে যাবে”