মানবাধিকার প্রতিবেদন ২০১০ (আসক)

২০১০ সালে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির চিত্র ফুটে উঠেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের প্রতিবেদনে। আসুন দেখে নেই বাকশালের জাগরণের যুগে দেশের আইন-শৃংখলা ও মানবাধিকার পরিস্থিতি।

* কমপক্ষে ৬২৬ নারী ধর্ষিত হয়েছে, যার মধ্যে গণধর্ষণের শিকার ২১৯ জন। ধর্ষণে মৃত্যু হয়েছে ৭৯ জনের, আত্মহত্যা করেছেন ৭ নারী, আইন প্রয়োগকারী সংস্খার সদস্যের হাতে ধর্ষিত ৮।
* ইভটিজিংএর কারণে ৩১ নারীর আত্মহত্যা, নারী নির্যাতনের কারণে আত্মহত্যা করেছেন এক পিতা, যৌন নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় নিহত হয়েছেন আরো ২০ জন।
* পারিবারিকভাবে নির্যাতিত হন ৩৯৭ জন নারী, যাদের মধ্যে নিহত হন কমপক্ষে ২৮৮ নারী, ৫১ জন আত্মহত্যা করেন।
* ৭৭ জন গৃহপরিচারিকা খুন।
* ৯৩ নারী অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার, যাদের একজনকে ধর্ষণের পর আক্রান্ত হয়।
* কারা হেফাজতে মৃত্যু হয় ৭৪ জনের।
* নিরাপত্তা হেফাজতে মৃত্যু ১৩৩ যার মধ্যে ক্রসফায়ারে মৃত্যু ৯৩।
* কমপকক্ষে ৩০০ সাংবাদিক নির্যাতিত হন।
* বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডে প্রাণ হারার কমপক্ষে ১৩৩ জন।
* সীমান্ত সংঘাতে মৃত্যু ২০৫।
* সাংবাদিক নির্যাতন ৩০১ জন, যার মধ্যে খুন হন ৪ জন।
* ১৪৪ ধারা জারি ১৫২ বার।
* ৪৩৬টি রাজনৈতিক সহিসংতায় নিহত হন ৭৫ জন, ৭১০৩ জন আহত হন।
* আওয়ামী লীগের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুন কমপক্ষে ৪০, আহত ২৯০৭ জন।
* আইন-শৃংখলা বাহিনীর হাতে রাজনৈতিক নির্যাতনে আহত ৪২৮, নিহত ১।
* ২,২৭৯ জন বাংলাদেশী বিদেশ থেকে ফেরেন লাশ হয়ে।
* জনশক্তি রপ্তানি কমেছে ২০ শতাংশ।

নজর এবার ঢাকার পানে

ধীরে ধীরে বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়ছে ঢাকা শহর। জ্যামিতিক হারে কমছে নাগরিক সুযোগ সুবিধা। পানি নেই, গ্যাস নেই, বিদ্যুত নেই, আছে শুধু নেতা-নেত্রীদের গালভরা প্রতিশ্রুতি। বিগত দিনগুলোতে ঢাকা মহানগরকে বাসযোগ্য করে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে কার্যকরী কোন পদক্ষেপ দেখা যায় নি বরং একে পরিণত করা হয়েছে বর্জের ভাগারে। মৃত্যু কূপে পরিণত হয়েছে মহানগর। অসহ্য যানজট, ময়লা আবর্জনা, শিল্পকারখানা নির্গত বিষাক্ত গ্যাস ও বর্জ, ছিনতাই, রাহাজানি, হত্যা তথা মানুষের জীবনের জন্য ক্ষতিকর এমন কোন কিছুরই অভাব নেই ঢাকা মহানগরে। Continue reading “নজর এবার ঢাকার পানে”