মানবাধিকার প্রতিবেদন ২০১০ (আসক)

২০১০ সালে বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির চিত্র ফুটে উঠেছে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের প্রতিবেদনে। আসুন দেখে নেই বাকশালের জাগরণের যুগে দেশের আইন-শৃংখলা ও মানবাধিকার পরিস্থিতি।

* কমপক্ষে ৬২৬ নারী ধর্ষিত হয়েছে, যার মধ্যে গণধর্ষণের শিকার ২১৯ জন। ধর্ষণে মৃত্যু হয়েছে ৭৯ জনের, আত্মহত্যা করেছেন ৭ নারী, আইন প্রয়োগকারী সংস্খার সদস্যের হাতে ধর্ষিত ৮।
* ইভটিজিংএর কারণে ৩১ নারীর আত্মহত্যা, নারী নির্যাতনের কারণে আত্মহত্যা করেছেন এক পিতা, যৌন নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় নিহত হয়েছেন আরো ২০ জন।
* পারিবারিকভাবে নির্যাতিত হন ৩৯৭ জন নারী, যাদের মধ্যে নিহত হন কমপক্ষে ২৮৮ নারী, ৫১ জন আত্মহত্যা করেন।
* ৭৭ জন গৃহপরিচারিকা খুন।
* ৯৩ নারী অ্যাসিড সন্ত্রাসের শিকার, যাদের একজনকে ধর্ষণের পর আক্রান্ত হয়।
* কারা হেফাজতে মৃত্যু হয় ৭৪ জনের।
* নিরাপত্তা হেফাজতে মৃত্যু ১৩৩ যার মধ্যে ক্রসফায়ারে মৃত্যু ৯৩।
* কমপকক্ষে ৩০০ সাংবাদিক নির্যাতিত হন।
* বিচার বহির্ভূত হত্যাকান্ডে প্রাণ হারার কমপক্ষে ১৩৩ জন।
* সীমান্ত সংঘাতে মৃত্যু ২০৫।
* সাংবাদিক নির্যাতন ৩০১ জন, যার মধ্যে খুন হন ৪ জন।
* ১৪৪ ধারা জারি ১৫২ বার।
* ৪৩৬টি রাজনৈতিক সহিসংতায় নিহত হন ৭৫ জন, ৭১০৩ জন আহত হন।
* আওয়ামী লীগের আভ্যন্তরীণ কোন্দলে খুন কমপক্ষে ৪০, আহত ২৯০৭ জন।
* আইন-শৃংখলা বাহিনীর হাতে রাজনৈতিক নির্যাতনে আহত ৪২৮, নিহত ১।
* ২,২৭৯ জন বাংলাদেশী বিদেশ থেকে ফেরেন লাশ হয়ে।
* জনশক্তি রপ্তানি কমেছে ২০ শতাংশ।