কটকা : আনন্দলোকের সিংহদ্বার

সোহেল। আবদুল্লাহ-হেল-বাকী, সোহেল। ২০০৪ সালের আজকের এই দিনে সবাইকে ফাঁকি দিয়ে চলে গেছ পৃথিবীর সীমা ছাড়িয়ে অসীম কোন আনন্দলোকে। পঙ্কিলময় এ পৃথিবীর সকল ক্লেদ ধুয়ে মুছে সাফ করে দিয়ে সুনীল বঙ্গোপসাগর তোমায় পৌঁছে দিয়েছে স্বচ্ছ সরবরে পাখির কলকাকলীতে মুখর জান্নাতুল বাকীর গুলবাগে। আর আমরা আজো তোমার স্মৃতিকে দুচোখে ধারন করে বেঁচে আছি তোমার গল্প শোনাবো বলে।

আজ আর কারো পথ চেয়ে অশ্রু ঝরান না তোমার স্নেহময়ী মা। আজ আর সন্ধ্যে শেষে ঘোর কালো আধাঁরে পৃথিবী ডুবে গেলেও তোমার অমঙ্গল চিন্তায় মায়ের মন কেঁেপ ওঠে না। আজ তোমার মায়ের অফুরন্ত অবসর। তোমার একমাত্র বোনটিকে নিয়ে তার নিরামিষ জীবন। একাকী থাকা, একাকী খাওয়া, একাকী পথচলায় কোন পিছুটান নেই, তাই জীবনের স্বাদ গন্ধ নিয়ে আর হাপিত্যেশ করার কোন মানে হয় না। Continue reading “কটকা : আনন্দলোকের সিংহদ্বার”