সৌদি আরবের সময়ের সাথে মিলিয়ে ঈদ ও শবে ক্বদর পালন কতটা যৌক্তিক?

ঈদ মোবারক! পূর্ণ একটি মাস সিয়াম সাধনার পরে আল্লাহর কাছ থেকে পুরস্কার গ্রহণের সেই অপার আনন্দময় পবিত্র সময় আমাদের সামনে।  আল্লাহ আমাদের ৩০ দিনের সিয়াম সাধনা কবুল করুন, আমাদেরকে রহমত, মাগফেরাত ও নাজাত দান করুন এবং পবিত্র রমজানের সিয়াম সাধনা যে উদ্দেশ্যে আল্লাহ আমাদের উপর ফরজ করেছেন সেই তাক্বওয়া অর্জনের তৌফিক দান করুন। আমীন।

এবার সৌদি আরবেও রমজান ৩০ দিনে পূর্ণ হয়েছে। ১৮ তারিখ পাকিস্তানের পশ্চিমাঞ্চলের উপজাতি এলাকায় ঈদ উদযাপিত হয়েছে, ১৯ তারিখে সৌদি আরবসহ বেশ কিছু দেশে ঈদ উদযাপিত হচ্ছে, বাংলাদেশসহ বাকী দেশগুলোতে ২০ আগস্ট ২০১২ রোজ সোমবার ঈদ উদযাপিত হবে।  ফলে এবারও বিশ্বে ৩ দিনব্যাপী ঈদ পালিত হচ্ছে।

সৌদি আরবের সাথে মিলিয়ে রমযানের রোজা রাখা, শবে ক্বদর পালন এবং ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা উদযাপন নিয়ে ইদানিং বেশ আলোচনা চলছে, বিশেষ করে মিডিয়ায় ৩ দিনব্যাপী বাংলাদেশে ঈদ উদযাপনের খবর সচিত্র সম্প্রচারিত হওয়ায় সাধারণ মানুষের মাঝে বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। অনেকেই সৌদি আরবের সময়ের সাথে মিলিয়ে ইসলামী অনুষ্ঠানাদি পালনে যুক্তি দিচ্ছেন, আবার অনেকেই পাল্টা যুক্তি দিয়ে তা খন্ডন করছেন। উভয় পক্ষই যুক্তি প্রদানের ক্ষেত্রে কোরআন-হাদীসকেই সাক্ষী মানছেন। তবে আমার কাছে ঈদ যেমন আনন্দের, ঈদ উদযাপন নিয়ে ভিন্ন মতের কারনে দেশে ৩ দিনব্যাপী ঈদ উদযাপিত হওয়াও কম আনন্দের নয়। আর আনন্দের বিষয় নিয়ে আলোচনা করাটাও আনন্দের, তাই স্বাভাবিকভাবে আমিও এ বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত মতামত তুলে ধরছি। Continue reading “সৌদি আরবের সময়ের সাথে মিলিয়ে ঈদ ও শবে ক্বদর পালন কতটা যৌক্তিক?”