Thy necessity is yet greater than mine

৬৩৬ সন। ইয়ারমুকের ময়দান। ইসলামের অগ্রযাত্রা প্রতিরোধে খৃষ্টীয় জোট হেনেছে মরণ ছোঁবল। চারিদিকে শুধু লাশের ছড়াছড়ি, লাশের গন্ধে ভারী হয়েছে আকাশ বাতাস। চারিদিকে শোকের মাতম, বাঁচার আকুতি, আর্ত-চিৎকার।

এর একপাশে পানি পানি অস্ফুট রবে ডেকে যায় কেউ কেউ। ছোট্ট পানির মশক হাতে এগিয়ে যান হযরত আবু জাহাম বিন হুজাইফা (রাঃ)। এগিয়ে যান চাচাতো ভাইয়ের পানে,  শাহাদাতের দোর গোড়ায় হযরত হারেস বিন হিশাম (রাঃ)। এর ফোঁটা পানির জন্য হাহাকার। তৃষ্ণার্ত ঠোটের কাছে পোঁছে যায় পানির মশক। তবু থেমে যান তিনি, পানির মশকের দিকে চাতকের ন্যায় তাকিয়ে আছেন হযরত ইকরামা বিন আবি জাহল (রাঃ)। ফিরিয়ে দিলেন পানির মশক, ভাইয়ের তৃষ্ণার্ত মুখ দেখে ভুলে গেলেন নিজের যন্ত্রণা, ইশারায় দেখালেন, যাও, আগে ইকরামাকে পানি পান করাও।

পানির মশক নিয়ে ছুটে যান ইকরামার (রাঃ) পানে, তৃষ্ণার্ত চোখ চকচক করে ওঠে আনন্দে, যেন এ পানিটুকুর জন্যই চলছে ইয়ারমুকের কঠিন সমর। পানির মশক তুলে নিলেন হাতে, ছোঁয়াবেন ঠোটে, থেমে যায় হাত হঠাৎ। চোখ চলে যায় হযরত আইয়াশ বিন আবি রাবিয়ার (রাঃ) পানে, তাকিয়ে আছেন তৃষ্ণার্ত নয়নে, এক ফোঁটা পানির জন্য হাহাকার শুধু। ফিরিয়ে দিলেন পানির মশক, বললেন, যাও, আগে আইয়াশকে পানি পান করাও। Continue reading “Thy necessity is yet greater than mine”