হেরে গেলেন ম্যারাডোনা, হেরে গেল কোটি বাঙ্গালীর আবেগ

হেরে গেল আর্জেন্টিনা, হেরে গেলেন ম্যারাডোনা, হেরে গেল বাংলাদেশ। হ্যা, বাংলাদেশ বিশ্বকাপে খেলছেনা বটে, কিংবা অদূর ভবিষ্যতে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ ফুটবল খেলার তেমন কোন সম্ভাবনাও দেখা যাচ্ছে না, তবুও আজকের খেলায বাংলাদেশরই পরাজয়। অবশ্য গতকালই পরাজয়ের শুরু, দেশের যে বিশাল ব্রাজিল সমর্থক রয়েছে তাদেরকে কাঁদিয়ে ব্রাজিল বিশ্বকাপ থেকে গতকালই বিদায় নিয়েছে। তারপরও আশা ছিল ম্যারাডোনার দল হয়তো এবার ঠিকই ছিনিয়ে নেবে বিশ্বকাপ। তবুও দুঃস্বপ্নের মতো সোনার সে কাপ অধরাই থেকে যায় মেসি বাহিনীর কাছে। আর্জেন্টিনার শোচনীয় পরাজয় বিশ্বকাপ উন্মাদনার যবনিকাপাত ঘটিয়েছে, বাংলাদেশী ফুটবলপ্রেমীদের আবেগের অপমৃত্যু ঘটেছে । Continue reading “হেরে গেলেন ম্যারাডোনা, হেরে গেল কোটি বাঙ্গালীর আবেগ”

বিশ্বকাপ উত্তেজনায় পতাকা অবমাননার অবসান হোক

এক সাগর রক্তের বিমিনয়ে অর্জিত লাল সবুজের পতাকা। এ পতাকা আমাদের স্বাধীনতার প্রতীক, সার্বভৌমত্বের প্রতীক, মর্যাদার প্রতীক, ভালোবাসার প্রতীক। যার অন্তরে ন্যূনতম দেশপ্রেম আছে সে পতাকার অবমাননা হয় এমন কোন কাজ স্বজ্ঞানে  করতে পারে না। জাতীয় পতাকাকে কেউ অসম্মান করে কোন বাংলাদেশীর সামনে থেকে সুস্থ্য দেহে ফিরে যেতে পারবে কি না সন্দেহ। তাহলে একবার ভাবুন তো বাংলাদেশের জাতীয় পতাকায় যদি ল্যাটিন আমেরিকার দেশের নাগরিক অগ্নি সংযোগ করে তবে হৃদয়ে কতটুকু ব্যথা অনুভূত হবে? নিশ্চিত যে, সুযোগ পেলে অনেকেই সেদেশীয় দূতাবাসে আগুন ধরিয়ে দিতে ছুটবেন গুলশান বনানীর ডিপ্লোমেটিক জোনে। অথচ সে একই কাজ করে চলেছি আমরা। বিশ্বকাপ ফুটবল শুরু হতে না হতেই ভিনদেশী পতাকায় আগুন দিলাম আরেকটি ভিন দেশের  পক্ষ নিয়ে, অথচ ব্রাজিল আর আর্জেন্টিনার নাগরিকেরা এভাবে প্রতিপক্ষের পতাকা পোড়ানোর মতো ধৃষ্টতা দেখায় না। যে অন্য দেশের পতাকার সম্মান বাঁচাতে জানে না, অন্য দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্বকে মর্যাদা দেয় না সে নিজের দেশকে আসলে কতটুকু ভালোবাসে তা চিন্তার বিষয়। Continue reading “বিশ্বকাপ উত্তেজনায় পতাকা অবমাননার অবসান হোক”