বাক স্বাধীনতা হরণের নথিপত্র

দৈনিক আমার দেশ পত্রিকাটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, একথা সবাই জানে। বন্ধ করা হয়েছে পত্রিকাটির প্রকাশকের দেয়া একটি প্রতারণা মামলায়, তাও সবার জানা। মামলাটি দিতে বাধ্য করতে গোয়েন্দা বাহিনী বন্দী করে রাখেন তাকে এবং সাদা কাগজে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করে, যা দিয়েই পরবর্তীতে মামলা হয়, একথাও জানা।

পত্রিকাটি প্রকাশক ছাড়াই প্রকাশিত হচ্ছিল, প্রকাশক স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করার পরও তার নাম ব্যবহৃত হচ্ছিল, এমন অভিযোগে পত্রিকার প্রেসে তালা ঝুলিয়ে দেয়া হয়, গ্রেফতার করা হয় সম্পাদককে, দেয়া হয় বিভিন্ন মামলা। কিন্তু এ কথা এখন সবাই জানে কিভাবে কয়েক মাস ধরেই ফাঁদ পাতা শুরু হয় পত্রিকাটির কন্ঠ রোধ করার জন্য। পত্রিকার প্রকাশকের পদত্যাগপত্র গৃহীত হলেও প্রকাশক হিসেবে মাহমুদুর রহমানকে মানতে প্রস্তুত ছিল না সরকার। ফলে প্রকাশকের বিষয়টি ফায়সালা না করে ঝুলিয়ে রাখা হয় সময় সুযোগমতো মোক্ষম আঘাতটি হানার জন্য, তা এখন সবার কাছেই স্পষ্ট। আসুন একবার দেখে নেই দৈনিক আমার দেশ বন্ধের নথিপত্র যা ফেসবুক থেকে সংগৃহীত।

Continue reading “বাক স্বাধীনতা হরণের নথিপত্র”

যমের সাথে লড়ছেন মাহমুদুর রহমান

প্রতি নি:শ্বাসে, মৃত্যুর দিন গুণছেন ‘দৈনিক আমার দেশ’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও সাবেক জ্বালানি উপদেষ্টা মাহমুদুর রহমান।  কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে আদালতের অনুমতি নিয়ে মাহমুদুর রহমান নিজের পক্ষে নিজেই শুনানিকালে তাকে হত্যা করা হতে পারে এমন আশংকা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, তিনি টের পেয়েছেন সরকার ক্ষমতায় থাকাবস্থায় তাকে জীবিত অবস্থায় কারাগার থেকে বের হতে দেবে না।” এমনকি কারাগারে তার মৃত্যুর পরে তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি খেয়াল রাখতে দেশবাসীর প্রতিও তিনি অনুরোধ জানান। Continue reading “যমের সাথে লড়ছেন মাহমুদুর রহমান”