জেগে ওঠো ভালোবাসায়

কে সবচেয়ে ভালো খেলোয়ার? ম্যারাডোনা? নাকি ইমরান খান?

নি:সন্দেহে প্রশ্নটি বিভ্রান্তিকর। কারণ ম্যারাডোনা আর ইমরান খানের মাঝে তুলনা হতে পারে না, দু’জন ভিন্ন স্বাদের দু’টি খেলার মহা নায়ক। বরং ম্যারাডোনার সাথে পেলে কিংবা শচিনের সাথে ইমরান খানের তুলনা চলতে পারে।

ব্যাট হাতে যে পারদর্শিতা দেখাতে পারেন ইমরান খান, “ইশ্বরের হাত” দিয়েও মেরাডোরা তার ধারে কাছে ঘেষতে পারবে বলে বিশ্বাস হয় না, ঠিক তেমনি মেরাডোনার পা থেকে বল কেড়ে নিতে মাইলের পর মাইল দৌড়োতে হতে পারে ইমরান খানের, গোল তো অনেক দূরের কথা। আসলে পৃথিবীতে কেউ সবচেয়ে ভালো খেলোয়ার নয়, কেউ কেউ এক বা একাধিক খেলায় পারদর্শী, সব খেলায় নয়।

অথচ আমরা নিজেদেরকে শ্রেষ্ঠ খেলোয়ার ভাবি। “আমি নিজে যা বুঝি পৃথিবীর অন্য কেউ তা বোঝে না, আমার মতের চাইতে ভালো মত আর কারো নেই, হয়তো ক্ষমতার জোরে আমার মতের উপর অন্যের মত জয়ী হল আজ, তবুও ও মতের চেয়ে আমার মতটাই হাজার গুণে নিখুত ছিল” এমন ধারনা আমাদের অনেকের মনেই।

অথচ আমি হয়তো একটি বিষয়ে খুব ভালো বুঝি, অন্য বিষয়ে কোন ধারনাই হয়তো আমার নেই। কলম পিষে পিষে দিস্তা দিস্তা খাতা শেষ করা হয়তো আমার পক্ষে সম্ভব কিন্তু পাথরের মতো শক্ত ও রুক্ষ জমিকে মাখনের মতো নরম করে সোনা ফলায় যে কৃষাণ তার কাজ অমন নিপুনভাবে কি আমার দ্বারা সম্ভব? তাহলে তার চেয়ে আমি শ্রেষ্ঠ কিভাবে?

তার চেয়ে বোকা আর কে হতে পারে যে নিজের বোকামী নিজে ধরতে পারে না? একজন জ্ঞানী অবশ্যই তার অজ্ঞতা সম্পর্কে সঠিক জ্ঞান রাখবে, তবেই তো সে জ্ঞানী। অথচ আমরা নিজেদেরকে জ্ঞানের টাইটানিক মনে করি, যদিও মূর্খতা আর নিজের মাঝে কোন ব্যবধানই হয়তো নেই।

জ্ঞানী তো সে যে তার জ্ঞানের সীমা জানে।যে জানে তার মতই শেষ নয়, তার মতের চেয়ে সুন্দর মত অন্য কারো মাথা থেকেও বেরিয়ে আসতে পারে। জ্ঞানী তো সে যে নিজের মতের উপর সম্মিলিত মতকে প্রাধান্য দেয়, মেনে নেয়, যদি তা সামষ্টিক ক্ষতির কারণ না হয়।বোকারাই শুধু নিজের স্বার্থের কথা ভেবে নিজের মত সবার উপর চাপিয়ে দেয়ার জন্য জেদ ধরে পড়ে থাকে।

“ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ” শ্লোগানটি অনেক শুনেছি। দলের স্বার্থে ব্যক্তি স্বার্থকে বিসর্জন দিতে হয়, কারন দল হাজারো ব্যক্তির প্রতিষ্ঠান। দল না থাকলে ব্যক্তির দাড়ানোর যায়গা থাকে না, ব্যক্তি না থাকলেও দল টিকে যায়। তাই নিজের মতের চেয়ে সামষ্টিক মত দূর্বল হলেও সবার স্বার্থে মেনে নেয়াই জ্ঞানীর পরিচয়।

নিজের মত অন্যের উপর চাপিয়ে দেয়ার বাতিক অনেকের আছে। অনেকের রপ্ত আছে মত চাপিয়ে দেয়ার হাজারো কৌশলও। তারা জানে কিছু লোক ভাবে আর কিছু লোক অন্যের ভাবনা দ্বারা প্রভাবিত হয়। যে কোন ফোরামে যখন কোন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয় তখন চৌকস লোকেরা নিজের মতকে প্রতিষ্ঠিত করার আপ্রাণ চেষ্টা চালায়। বিশেষ করে যারা অন্যের ভাবনায় প্রভাবিত হয় তাদের প্রভাবিত করতে সবার আগে নিজের মত উপস্থাপন করে নিরপেক্ষ লোকদের স্বমতে আনার আপ্রাণ চেষ্টা চালায়।

কিন্তু ফোরাম যখন তার মতকে পাত্তা না দিয়ে অন্য সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে তখন যদি সেই ব্যক্তি আনন্দচিত্তে সম্মিলিত মতকে মেনে নেয়, সবার স্বার্থে নিজের মতকে মুহূর্তেই জলাঞ্জলি দিয়ে সম্মিলিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে নিজের জীবনকে বাঁজি রেখে ঝাপিয়ে পড়ে, তবে তার চেয়ে মহৎপ্রাণ আর কে হতে পারে? এমন উদার নৈতিক নেতৃত্বই জানে সবার সিদ্ধান্ত যদি ভুলও হয়, তাতেই কল্যাণ। সম্মিলিত সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে যদি মৃত্যুকেও আলিঙ্গণ করতে হয় তবে তার চেয়ে আনন্দের আর কিছু নেই। সবার ভালোবাসায় যে মৃত্যু, সে মরণ হাজারো জীবনের চেয়েও যে উত্তম।

Be Sociable, Share!

এ লেখাটি প্রিন্ট করুন এ লেখাটি প্রিন্ট করুন

“জেগে ওঠো ভালোবাসায়” লেখাটিতে 6 টি মন্তব্য

  1. পাশা বলেছেন:

    দলের সিদ্ধান্তকে মেনে নেয়ার ক্ষমতা অনেকের ই থাকে না। তারা বিভিন্ন বাহানায় দলের মানুষগুলোকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করে।

    সত্যগুলো বাহিরে প্রকাশ হলেও তারা বিভিন্ন ভাবে এটাকে অপপ্রচার হিসাবে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। এতে দল ক্ষতিগ্রস্থ হলেও তারা তাদের অবস্থানে অনঢ় থাকে।

    [উত্তর দিন]

  2. শাহরিয়ার বলেছেন:

    যারা সবার স্বার্থে নিজের মত কে ছেড়ে দিতে জানে না তারা আর যাই হোক নেতৃত্বের প্রতি মোহহীন, লোভহীন কিছুতেই হতে পারে না। আর লোভী কারো কাজ থেকে পূর্ণাঙ্গ কল্যাণ আশা করা যায় না। ধন্যবাদ পাশা ভাই।

    [উত্তর দিন]

  3. আরাফাত রহমান বলেছেন:

    ব্যাঙ যে কুয়াতে থাকে সে ভাবে পৃথিবীতে বুঝি এটুকুই পানি আছে, মহাসমুদ্রের খবর ব্যাঙের কাছে নেই। তাইতো সে মূর্খের মত নিজেকে শ্রেষ্ঠ ভাবে।

    [উত্তর দিন]

  4. শাহরিয়ার বলেছেন:

    একদম খাঁটি কথা বলেছেন আরাফাত ভাই। ধন্যবাদ।

    [উত্তর দিন]

  5. ABHIMANI বলেছেন:

    আপণার মত যদি কূপমন্ডুকরা ভাবত তাহলে কতইনা ভাল হত…।

    [উত্তর দিন]

  6. শাহরিয়ার বলেছেন:

    ধন্যবাদ অভিমানী।

    [উত্তর দিন]

মন্তব্য করুন