খালেদা জিয়া মেট্রিক ফেল : ড. শেখ হাসিনা

অসংখ্য ডক্টরেট ডিগ্রী ও জ্ঞানের মহা জঞ্জালের চাপে মাঝে মাঝে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মুখ দিয়ে মহামূল্যবান বাণী বেরিয়ে আসে। যেমন আজ তিনি জাতিকে জানালেন, “বেগম খালেদা জিয়া মেট্রিকে ফেল করেছিলেন। তাই তিনি পাশ করেন নাই, কাজেই আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা পাশ করবে কেন? বলি আমি পারি নাই, তোরা পারবি কেন?”  তবে নিন্দুকেরা বলেন, শিক্ষাই আলো। যার মাঝে যতটুকু শিক্ষা আছে সমাজ তার দ্বারা ততটুকু আলোকিত হয়। মানুষের কথাবার্তা, আচার আচরণেই শিক্ষাদীক্ষার কিরণ বিচ্ছুরিত হয়। আর গ্রামগঞ্জের স্বল্পশিক্ষিত বাসের ড্রাইভার হেল্পার কিংবা হোটেল রেস্তোরার কর্মচারীরাও জানে, ব্যবহারেই বংশের পরিচয় কিংবা বলা যায় শিক্ষা-দীক্ষার পরিচয়।” তবে মহাজ্ঞানী শেখ হাসিনার পক্ষে এত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র বিষয় স্মরণে রাখা আদৌ সম্ভব কি না তাই ভাবনার বিষয়।

যারা বেশি জ্ঞানী তাদের কিছু ছোটখাট সমস্যা আছে। বিশেষকরে বিজ্ঞানীদের ভুলো মন নিয়ে অনেক গল্প আছে। আইনস্টাইন তো এমন ভুলো মনের ছিলেন যে নিজের বাসার ঠিকানাই ভুলে যেতেন। তবে বিজ্ঞানীদের বৌদের ভুলোমন নিয়ে তেমন কিছু শোনা যায় না। সম্ভবত তাদের এক্ষেত্রে আরো এক ডিগ্রী উপরে থাকার কথা, ঠিক নাপিতের বৌদের মতো। বিজ্ঞানী ওয়াজেদের জেদী বৌয়েরও এ ধরণের ছোটখাট কিছু সমস্যা আছে, যা তিনি বুঝতে পারেন না। তিনি বুঝতে পারেন না, তিনি যখন কথা বলেন, মুর্খদেরও হার মানিয়ে দেন, তিনি যখন শব্দ উচ্চারণ করেন, ভুল উচ্চারণ করেন (যেমন সম্মানকে তিনি সন্মান উচ্চারণ করেন), তিনি একটা বলতে গিয়ে অন্যটা বলে ফেলেন (বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১১ উদ্বোধন করতে গিয়ে তিনি বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০০১ উদ্বোধন করে ফেলেন)। সবচেয়ে বড় সমস্যা, তিনি বক্তৃতা দেয়ার সময় একটা বাক্য শুরু করলে শেষ করতে পারেন না, শুরুটা হয় এক বিষয় দিয়ে, লাইনটি শেষ হয় অন্য বিষয়ে। যদিও তার মতো জ্ঞানী পন্ডিতের এসব তুচ্ছ বিষয় খেয়াল করার কথা নয়, তিনি খালেদা জিয়ার জীবনবৃত্তান্ত রচনায় ইদানিং মহাব্যস্ত। আশাকরা যায় বৈচিত্রময় জীবনের অধিকারী খালেদা জিয়ার জীবনের বিভিন্ন দিক বিশ্লেষন করে শেখ হাসিনা  আরো একটি ডক্টরেট ডিগ্রী লাভ করতে পারবেন।

তবে একটা চিন্তা আমাকে মাঝে মাঝে ব্যাকুল করে। শেখ হাসিনা তার জীবনের অনেকটা সময় কাটিয়েছেন লন্ডনে। তবু ইংরেজী ভাষার প্রতি তার রয়েছে সীমাহীন ভীতি। তিনি ইংরেজী যেমন বলতে পারেন না, দেখে দেখে পাঠ করতেও গলদঘর্ম হয়ে যান। আমার স্পষ্ট মনে আছে, শেখ হাসিনা বিগত আমলে বিবিসিকে সাক্ষাৎকার দিচ্ছিলেন। প্রশ্নগুলো পূর্বেই তাকে সরবরাহ করা হয়েছিল এবং তিনি মুখস্ত জবাবগুলো মোটামুটি চালিয়ে গেলেন। কিন্তু গন্ডগোল বাধে তখন, যখন শুরু হয় উন্মুক্ত প্রশ্নোত্তর পর্ব। শেখ হাসিনাকে বেশ কয়েকটি প্রশ্ন নাজেহাল করে তার মাঝে ভারতের জনৈক দর্শক উপমহাদেশে অভিন্ন মুদ্রার প্রচলন নিয়ে প্রশ্ন করেন। জবাবে শেখ হাসিনা বাংলায় বললেন, আমি আমার দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বাংলায় কিছু বলতে চাই। তার এমন ইংরেজী ভীতিতে তিনি আদৌ লজ্জিত হয়েছিলেন কি না জানি না তবে যেসকল বাংলাদেশী টিভির পর্দায় শেখ হাসিনার সাক্ষাৎকারটি দেখেছিলেন তাদের লজ্জার কোন সীমা-পরিসীমা ছিল না। আসলে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে এমনকি জাতিসংঘেও শেখ হাসিনা বাংলায় যত বক্তৃতা করেন তা আদৌ বাংলার প্রতি ভালোবাসার জন্য নয়, শ্রেফ ইংরেজী ভীতি থেকেই তিনি ইংরেজী এরিয়ে চলেন। ইংরেজী ভীতিকে আড়াল করতেই তিনি বাংলার প্রতি ভালোবাসা ভান করেন মাত্র।

আসুন পুরনো একটি কৌতুক পড়ি

স্কটল্যান্ডের ছোট্ট এক শহরের পাশ দিয়ে গণ্ডমূর্খ কিন্তু ধনবান এক লোক ঘোড়ায় চড়ে বেড়াচ্ছিলেন। আশপাশে নানারকম দৃশ্য দেখতে দেখতে হঠাৎ তার নজরে পড়ে একটি ইউনিভার্সিটির সাইনবোর্ড। সেখানে অনেক লোকের জটলা। চট করে নেমে ঘোড়াটা বেঁধে রেখে ভেতরে গিয়ে তিনি জানতে পারেন এখানে মূর্খদের ডক্টরেট ডিগ্রি দেওয়া হয়। তিনি ডক্টরেট ডিগ্রী ক্রয়ে আগ্রহী হলে কাউন্টারে বসা কর্মকর্তা বলেন, দু’হাজার পাউন্ড জমা দিলে আমরা এখনই আপনাকে ডক্টরেট ডিগ্রি দিয়ে দেব। সঙ্গে সঙ্গে দু’হাজার পাউন্ড জমা দিয়ে ডক্টরেট ডিগ্রি নিয়ে খুশি মনে আবার ঘোড়ায় চড়ে বাড়ির দিকে রওনা দেন ধনবান ব্যক্তি। কিছুদূর যাওয়ার পর তার মনে হয় মাত্র দু’হাজার পাউন্ডে ডক্টরেট ডিগ্রি? আমার ঘোড়ার জন্যও একটা ডক্টরেট ডিগ্রি নিয়ে নিলে মন্দ হয় না। যেই ভাবনা সেই কাজ। কাউন্টারে গিয়ে ঘোড়ার জন্যও একটা ডক্টরেট ডিগ্রীর আব্দার জানালেন। বিরক্ত কাউন্টার কর্মকর্তার জবাব: দুঃখিত, ঘোড়ার নয়, শুধু গাধাদের ডক্টরেট ডিগ্রীই এখানে বিক্রয় হয়।

Be Sociable, Share!

এ লেখাটি প্রিন্ট করুন এ লেখাটি প্রিন্ট করুন

“খালেদা জিয়া মেট্রিক ফেল : ড. শেখ হাসিনা” লেখাটিতে 17 টি মন্তব্য

  1. চার্চিল বলেছেন:

    ওনার শিক্ষার ইতিহাসটা জাতির সামনে তুলে ধরার অনুরোধ করছি।

    [উত্তর দিন]

    হৃদয় উত্তর দিয়েছেন:

    কেউ কারে নাহি ছাঢ়ে সমানে সমান।
    শিক্ষায় বেগম খালেদার দুর্বলতা না থাকলে উনিও কম যেতেন কোথায়। উনিতো ম্যাট্রিক না পাস করেই কলেজে পড়ার ফিরিস্তি দিয়েছিলেন। এ গোমর ফাঁস না হলে উনি এতদিনে কত ডিগ্রী বগলদাবা করতেন।

    [উত্তর দিন]

    IKBAL AHMAD SIDDIQUE উত্তর দিয়েছেন:

    ASOL OSIKKITO GORDOB HOLO HASINA…

    [উত্তর দিন]

  2. Mostafa Kamal বলেছেন:

    জার জতটুকু বুিদ।দ টার ততট্বক্ব কতা।

    [উত্তর দিন]

  3. salauddin বলেছেন:

    very interesting writing. i can not understand how the stupid persons who were in front of hasina clapped for her. how long do you (hasina) betray with the nation. we r living without food, ill health care….please think about us. or, people will say who cares you like Libya…..

    [উত্তর দিন]

  4. Abdul Quader বলেছেন:

    Jati Bangabandur Nanar paskher Itihas Jante chaae!!!!

    [উত্তর দিন]

  5. আসিফ বলেছেন:

    খালেদা জিয়া পড়ালেখা যানে না বুঝলাম, কিন্তু শেখ হাসিনা আপনিতো জানেন, তাহলে আপনার ইংরেজির এত দূরবস্থা কেন?? এতগুলি মহামূল্যবান ডিগ্রী আপনার দখলে কিন্তু তারপরেও তো মনে হয় ইংরেজি বলতে গেলে আপনার দাত সবগুলি খুলে এখনই পড়ে যাবে। তার প্রমানতো World Cup এর অনুষ্ঠানেই দেখা গেছে।

    [উত্তর দিন]

  6. Abdullah বলেছেন:

    One correction, it was the state minister who said 2001 world cup, not the PM.

    And there is no shame for not knowing English. There are many leaders around the world who do not speak English.

    [উত্তর দিন]

    শাহরিয়ার উত্তর দিয়েছেন:

    সংশোধনী গ্রহণ করতে পারছি না বলে দুঃখিত। প্রধানমন্ত্রীই বাংলায় বলেছিলেন, একটু পরেই বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০০১ এর উদ্বোধনী ঘোষণা করছি, অবশ্য ইংরেজীতে সঠিকটাই বলেছিলেন।
    হ্যা, ইংরেজী বলতে না পারায় কোন লজ্জা নেই, তবে তা ঢাকার জন্য ছলচাতুরিরও কোন প্রয়োজন দেখি না। যাদের দাঁত উচু তারা যদি কথায় কথায় মুখে হাত দেয় তবে সবারই নজরে আসে যে তিনি তার উচু দাঁত নিয়ে বিব্রত, অথচ স্বাভাবিকভাবে কথা বললে দাঁত উচু না বাঁকা তা কারো কাছেই তেমন একটা গুরুত্ব পায় না।
    ধন্যবাদ।

    [উত্তর দিন]

  7. Raihan Jamil বলেছেন:

    English is her second language. Also you probably have not seen her live interviews or Q&As. She speaks decent and grammatically correct English most of the time.

    You are mixing slip of the tongue with ignorance. That reflects something about you as well.

    Where I do not condone her speech about Mrs. Zia’s illiteracy, one should not put forward false information either. I never heard Mrs. Zia appearing for SSC even. I always heard she studies up to class 8.

    Also you should not attempt to correct Bangla of someone who has a degree in that subject from the most prestigious institution of Bangladesh.

    Finally, please do not mix up honorary doctorates with actual ones.

    Engreji na parar jonno jodi apnar lojjay matha het hoye jaay, perhaps you need to ask yourself why do you have such low self esteem.

    Bhalo thakun.

    [উত্তর দিন]

    farhad উত্তর দিয়েছেন:

    bhalo likhechhen…

    “Engreji na parar jonno jodi apnar lojjay matha het hoye jaay, perhaps you need to ask yourself why do you have such low self esteem.” liked most..dhonyobaad

    [উত্তর দিন]

  8. nirob বলেছেন:

    Hasina onek onek better than khaleda in case of education. Tini educated deikha tar chele computer scientist hoisa but Murkho khaledar chele tarek and arafat murkho hoisa. Oborso murkhu tarek doctor bia korse…lol. Khaledar moto murkho amader primeminister cilo bhabte lolla laga.

    [উত্তর দিন]

    farhad উত্তর দিয়েছেন:

    shunechhi oi biyata tareq jor korey korechhen…

    anyways hasina apar ebhabey bola thhik na…

    [উত্তর দিন]

  9. Raihan বলেছেন:

    শেখ হাসিনার, কথা বলা আসলে ই ভালনা…তাই বলে তার মত সু শিখখিত একজন মানুষ কে খালেদা যিয়ার সাথে compare করা কতটা গ্রহনযোগ্য?

    এগুলো উদ্দেশ্য প্রনদিত……
    এই লেখক জামাত পন্থি for sure….

    [উত্তর দিন]

  10. farhad বলেছেন:

    “ইংরেজী ভীতিকে আড়াল করতেই তিনি বাংলার প্রতি ভালোবাসা ভান করেন মাত্র।” তাও ভানটুকু তো করেন।।আমরা অনেকে তো অতটুকুও করিনা!!!

    [উত্তর দিন]

  11. হৃদয় বলেছেন:

    ১। শেখ হাসিনার ইংরেজী বলা আগেও শুনেছি, যখন তিনি নিজের মত করে বলতেন। ইংরেজীতে তিনি এক দীর্ঘ সাক্ষ্যাৎকারও দিয়েছেন (বিবিসির স্বপ্নাদাশ গুপ্তার সাথে)। সেখানে বা অন্য কোথাও কোন ভূল ইংরেজী বলেছেন বলে কেউ বলতে পারছেনা।
    ২। কিন্তু বিপত্তি ঘটছে ইংরেজী বলার স্টাইল পরিবর্তন করায়। বুঝা যাচ্ছেনা তিনি কোন জগতের ইংরেজী বলছেন। সমস্যাটা আসলে অন্য জায়গায়। একেই তো উনার বয়স। তার উপর এবয়সে আকৃষ্ট হয়েছেন ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয়ের চমৎকার ইংরেজী বাচনভঙ্গিতে। অনুসরণ করার চেষ্টা করছেন নিজের ছেলের বাচন ভঙ্গিকে।
    ৩। এবয়সে বেহুদা কসরত না করলেই কি নয়? ক্ষতি নাই বরং জাতির ইজ্জত বাড়বে।

    [উত্তর দিন]

  12. aTOz বলেছেন:

    সু-শিক্ষিত মানেই স্বশিক্ষিত নয় |

    [উত্তর দিন]

মন্তব্য করুন