থার্টি ফার্স্ট নাইটে টিএসসিতে আবারো শ্লীলতাহানি : নীরব মিডিয়া

থার্টিফার্স্ট নাইটে টিএসসিতে এবারে শ্লীলতাহানির ঘটনায় মিডিয়া ছিল নীরব

ভিডিওটিতে স্পষ্টতই দেখা যাচ্ছে উলংগ মেয়েটি পুলিশ প্রহরায় ইজ্জত ঢাকতে ব্যস্ত। শুধু মাত্র সরকারের ভাবমূর্তি রক্ষার্থে এবং অপসংস্কৃতির আগ্রাসনকে অব্যাহত রাখার স্বার্থে  একুশে টেলিভিশন বাদে মিডিয়াগুলো এবারে ছিল সম্পূর্ণ নীরব।  একুশে টেলিভিশন সচিত্র সংবাদ সম্প্রচার করেছে তবে অশ্লীলতার কারণে ছবিটি ঝাপসা করে প্রচার করেছে বলে মনে হয়। (2010: Year of Sexual Abuse) যৌনসন্ত্রাসের বছরের শেষ রাতে, নতুন বছরের প্রথম প্রহরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসিতে যৌনসন্ত্রাসের এ করুণ চিত্র মনে প্রশ্ন জাগায়, ২০১০ সালের মতো এ বছরটিও কি কেটে যাবে যৌনসন্ত্রাস আতংকে নাকি সামনে রয়েছে সীমাহীন ভয়ংকর পাথর সময়!

***

সামু ব্লগে  িডবাস্বপ্ন ব্লগারলেখাটি শেয়ার করেছেন তাতে আমি স্যাম নামের আরেক ব্লগার মন্তব্য করেছেন , “…ভিডিওটা একুশে টিভিতে তো এভাবে অসম্পূর্ণ দেখানো হয়নি, নাকি এভাবেই দেখানো হয়েছে??? একটা অসম্পূর্ণ ভিডিওর কর্তিত অংশ যেখানে যে ছেলে অপরাধ করেছে তার তথ্য না দিয়ে ঢাবির নামে কুৎসা রটানো হচ্ছে…” । যেহেতু সামুতে আমার প্রবেশাধিকান নেই তাই এখানেই লিখছি। প্রকত বিষয় এই যে থার্টি ফার্স্ট নাইট নিয়ে প্রচারিত সংবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই অংশটুকুতে একুশে টেলিভিশ বখাটেদের নাম উল্লেখ করেনি, এমনটি বিষয়টি আড়াল করতে “কিছু বিচ্ছিন্ন অঘটন” বলে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা হয়েছে। ভিডিওটিতে আমি কোন এডিটিং করিনি, সংবাদের মাঝের কোন অংশ কাটছাট করিনি বরং সংবাদটি যে হুবহু তুলে দেয়া হয়েছে তা বোঝানোর জন্য ভিডিওর শুরুতে পুলিশের বক্তৃতার শেষ অংশটুকু রেখে দিয়েছি যাতে ধারাবাহিতা সহজে সবাই বুঝতে পার এবং শেষেও শাহবাগে দুজনার গ্রেফতার সংবাদটুকু রেখে ভিডিওটি শেষ করেছি। যারা পুরো ভিডিওটি যাচাই করতে চান তারা একুশে টেলিভিশনের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

Be Sociable, Share!

এ লেখাটি প্রিন্ট করুন এ লেখাটি প্রিন্ট করুন

মন্তব্য করুন