আল্লামা সাঈদী হুজুরের জীবন ও কর্ম নিয়ে নির্মিত সফটওয়ার

আল্লামা সাঈদী হুজুরের জীবন ও কর্ম নিয়ে সফটওয়ার নির্মান করা হয়েছে। এতে তাঁর জীবনী, বিরল অডিও বক্তৃতা, ভিডিও বক্তৃতা, বিবেদিত কবিতা, বিরল ছবি ও আর্টিকেল আছে।

সাইজঃ ২.০৮ গিগাবাইট।

ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক করুন। (রিজিউম সাপোর্টেড)

জিপ ফাইলটি ডাউনলোড করে এক্সট্রাক্ট করুন। তারপর “Sayedee at a glance” ফাইলটিতে ক্লিক করুন। ক্লিক করলেই ওপেন হবে। সেটআপ দেয়ার প্রয়োজন নেই।

ডিসেম্বরে করিডোর চুক্তি

ডিসেম্বরে করিডোর চুক্তি করতে যাচ্ছে বিসিআইএম (বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মিয়ানমার)। কলকাতা-ঢাকা-সিলেট-ইম্ফল-তামু-মান্দালয়-লাসিও-ভামো-রুইলি-কুনমিং ২৮০০ কি.মি. সিল্ক রুট অনুমোদিত হয়েছে ফেব্রুয়ারীতে অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মিয়ানমারের মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে। বৈঠকের সিদ্ধান্ত মোতাবেক করিডোর সুবিধা, যোগাযোগ, শক্তি, বিনিয়োগ, পণ্য ও সেবার বিনিময়, মানুষে মানুষে সংযোগ ইত্যাদি ১১টি বিষয়ের উপর স্টাডি রিপোর্ট তৈরী করছে চারটি দেশের মন্ত্রণালয়। জুনে চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিতব্য মন্ত্রীপর্যায়ের বৈঠকে চারদেশের রিপোর্টের ভিত্তিতে তৈরী হবে কম্বাইন্ড রিপোর্ট। এরপরে ডিসেম্বরে নয়া দিল্লীতে স্বাক্ষরিত হবে বহুবিতর্কিত ট্রানজিট চুক্তি। উল্লেখ্য, ১৯৯৯ সাল থেকে বিসিআইএম ইকোনমিক করিডোর নিয়ে বাংলাদেশের সিপিডি, চীনের ইউনান একাডেমী অব সোস্যাল সায়েন্স, ভারতের সেন্টার ফর পলিসি রিসার্চ এবং মায়ানমারের সীমান্ত বাণিজ্য মন্ত্রণালয় একযোগে কাজ করে অবশেষে সফলতার মুখ দেখতে চলেছে। এ চুক্তির ফলে প্রস্তাবিত সোনাদিয়া গভীর সমুদ্রবন্দর ব্যবহার করে চারটি দেশই উপকৃত হবে বলে মনে করা হচ্ছে।
কিন্তু বাংলাদেশের এতে কি লাভ? বাংলাদেশ কি পাবে? পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মতে বাংলাদেশ এরমাধ্যমে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার যোগাযোগের হাবে পরিণত হবে। এ চুক্তির ফলে ভারত-বাংলাদেশ বিদ্যুত বিষয়ক সহযোগিতা সহজতর হবে। সিকিমের উদ্বৃত্ত বিদ্যুত বাংলাদেশ সহজে পেয়ে যেতে পারে এমনটাই বলা হয়েছে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কনসেপ্ট পেপারে।
আচ্ছা, সিকিম কি সিল্ক রুটের মাঝে পড়ে? মোটেই না। তাহলে করিডোর সুবিধা দিলে বিদ্যুত সুবিধা পাওয়া যাবে তা কতটুকু নিশ্চিত, পাওয়া গেলেও তা করিডোরের ক্ষতির চেয়ে বেশী উপকারী হবে কি না তার নিশ্চয়তা কোথায়? কিংবা করিডোর দেয়ার পরে ভারত যদি বরাবরের মতো প্রতিশ্রুত ভঙ্গ করে বিদ্যুত নিয়ে টালবাহানা করে তবে কি করিডোর ধরে ট্রাক, লরিতে বোঝাই হয়ে বাংলাদেশে বিদ্যুত আসবে? কম্পেসড ন্যাচারাল গ্যাসের মতো (সিএনজি), কম্প্রেসড ইলেকট্রিসিটি?

মাটি কামড়ে পড়ে থাকা মুসলমানেরা জাগো!

“হে ঈমানদারগণ! তোমাদের কী হলো , যখনই তোমাদের আল্লাহর পথে বের হতে বলা হলো, অমনি তোমরা মাটি কামড়ে পড়ে থাকলে? তোমরা কি আখেরাতের মোকাবিলায় দুনিয়ার জীবন পছন্দ করে নিয়েছো? যদি তাই হয় তাহলে তোমরা মনে রেখো, দুনিয়ার জীবনের এমন সাজ সরঞ্জাম আখেরাতে খুব সামান্য বলে প্রমাণিত হবে৷তোমরা যদি না বের হও তাহলে আল্লাহ তোমাদের যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি দেবেন এবং তোমাদের জায়গায় আর একটি দলকে ওঠাবেন, আর তোমরা আল্লাহর কোন ক্ষতি করতে পারবে না৷ তিনি সব জিনিসের ওপর শক্তিশালী৷”-আল-কোরআন, সূরা আত তাওবাহ, আয়াত ৩৮-৩৯

একদিন জেহাদের ডাক আসবে, হারে রে রে রবে দা বটি, ক্ষুন্তি, কোদাল নিয়ে ঝাপিয়ে পড়ে ইসলামের শত্রুদের কুপোকাত করে বাংলার নীল আকাশে পতপত করে উড়িয়ে দেব কালেমার সবুজ পতাকা। এমন সুখস্বপ্ন অনেক মুসলমানই দেখেন। স্বপ্নটাকে তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করতে কোলবালিশটা আরো শক্ত করে আকড়ে ধরে রাতের পর রাত পার করে দেন অনেক আলেমে দ্বীন। তবু জেহাদের সে ডাক আসে না, আল্লাহর পথে বের হতে হয় না। জমিন কামড়ে কামড়ে বেশ কেটে যায় মর্দে মুজাহিদের দিন। মাটি কামড়ে পড়ে থাকা মুসলমানেরা জাগো!»» সম্পূর্ণ পোস্ট পড়ুন

উনুন থেকে ছড়িয়ে পড়ুক ইসলামী বিপ্লব

ইসলামী আন্দোলনের লাখো লাখো নেতা-কর্মীর মতো আমিও বিপ্লবের স্বপ্ন দেখি। প্রতিনিয়ত এমন একটা সমাজের চিত্র মনের মাঝে এঁকে চলেছি, যে সমাজে একমাত্র আল্লাহর প্রভূত্ব প্রতিষ্ঠিত, যেখানে মানুষরূপী দানবেরা মানুষের ভাগ্যবিধাতা হয়ে জেঁকে বসতে পারে না, যে সমাজে নারী-পুরুষ, ধনী-গরিব, মুসলিম অমুসলিম সবার রয়েছে বেঁচে থাকার সমান অধিকার, খাদ্য-বস্ত্র-বাসস্থানের নিশ্চয়তা। এমন একটা সমাজের স্বপ্ন বুনে চলেছি যে সমাজের আমীর, দূর ফোরাতের তীরে ক্ষুধায় কোন কুকুরের মুত্যুতেও জবাবদিহিতা অনুভব করে। যে সমাজের বিচারকের দরবারে অপরাধী নিজ সন্তানও চাবুকের সাজা পেয়ে মৃত্যুর দুয়ারে পা বাড়ায়, যে সমাজে একাকী নারী সানা থেকে হাজরামাউত পর্যন্ত নির্ভয়ে যাত্রা করে। উনুন থেকে ছড়িয়ে পড়ুক ইসলামী বিপ্লব»» সম্পূর্ণ পোস্ট পড়ুন

মার্চ ফর ডেমোক্রেসি লাইভ


সমকামিতা প্রতিরোধে ধর্মদ্রোহী আওয়ামী লীগকে প্রতিহত করুন

image

৬ মে গণহত্যার প্রামাণ্যচিত্র

সংবিধান সমকামিদের অধিকারের পক্ষে : দীপু মনি

বাংলাদেশের সংবিধানে লেসবিয়ান, গে, বাইসেক্সুয়াল ও ট্রান্সজেন্ডার মানুষদের (সংক্ষেপে এলজিবিটি) অধিকার সংরক্ষণের স্বীকৃতিদানের কথা বলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী দীপুমণি।

গত এপ্রিল মাসে জেনেভায় অনুষ্ঠিত ইউনিভার্সাল পিরিয়ডিক রিভিউতে তিনিএ তথ্য জানান।

তিনি আরো বলেন, সাংবিধানিকভাবে তাদের সমঅধিকার ও স্বাধীনতা দেয়ার কথা বলা হয়েছে ।

বিডি নিউজ ২৪ ডট কম-এ প্রকাশিত রেইনার এবার্টের “সমকামিতা : ধারণা বনাম বাস্তবতা” শিরোনামের এক নিবন্ধে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়।

নিবন্ধে আরো বলা হয়,কয়েক মাস আগে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বন্ধু ওয়েলফেয়ার সোসাইটির একটি অনুষ্ঠানে ঘোষণা দেন যে, জাতীয় আইন কমিশনের সহায়তায় তার কমিশন একটি আইনের খসড়া তৈরির কাজ করছে যেটি ব্যক্তির যৌনজীবনের কারণে তার প্রতি বৈষম্য নিষিদ্ধ করবে।

সোর্স : http://www.newsevent24.com/?p=23543

Download (PDF, 870KB)

 

India: Protect Bangladesh War Crimes Trial Witness: HRW

Abducted in Bangladesh, Now Detained in India, Risk of Death if Returned

(New York) – The authorities in India and Bangladesh should take all necessary steps to protect Shukhoranjan Bali, a long-missing witness in the International Crimes Tribunal (ICT) in Bangladesh, Human Rights Watch said today.

Bali, a Bangladeshi national, claims he was abducted by the Bangladeshi police from the entrance to the ICT courthouse, detained in Bangladesh, then forced by Bangladeshi security forces across the border into India, where he claims he was detained and tortured by the notorious Border Security Force (BSF) before being held in Kolkata’s Dum Dum jail.

“The apparent abduction of a witness in a trial at the ICT is a cause for serious concern about the conduct of the prosecution, judges and government,” said Brad Adams, Asia director. “Among many questions is who ordered the abduction, and how senior the officials involved were.”

Bali was due to appear to give evidence as a defense witness before the ICT, a court expressly set up to try people suspected of war crimes during Bangladesh’s 1971 war of independence. He had previously been listed as a prosecution witness. Bali claims that on November 5, 2012, he was abducted by people in plainclothes at the gates of the ICT, put into a police van, and then taken away to the offices of the police.

Witnesses present at the courthouse claimed to have seen the abduction.

Defense complaints to the ICT led to the judges asking for the prosecution, rather than an independent body, to investigate the allegations. The prosecution returned to the court and denied the defense allegations entirely, saying that there had been no abduction, despite eyewitnesses. The judges ordered no further investigation into Bali’s disappearance. No information about his whereabouts was made public and the government ignored calls to set up an investigation. The attorney general, testifying on a habeas corpus petition filed on Bali’s behalf, stated that the abduction claim had been made to bring the court into disrepute – but offered no evidence for this assertion.

Bali had been expected to counter prosecution allegations about the involvement of Delwar Hossain Sayedee in the 1971 murder of Bali’s brother. Saydeee has since been sentenced to hang, in part for the murder of Bali’s brother.

Bali claims that he was abducted at the courthouse by police, held in government custody for several weeks, and then pushed across the border to India. Human Rights Watch has documented how the BSF routinely kills Bangladeshis who cross the border illegally. In April, Bali was sentenced by an Indian court to 110 days in jail for entering the country illegally. He has already completed his term but is still in jail.

Human Rights Watch learned in March that Bali was in Dum Dum jail in Kolkata, but did not make the information public pending meeting Bali to ensure that he thought this would not jeopardize his safety. Human Rights Watch is releasing this background after the Bangladesh newspaper, New Age, made this information public on May 15.

India should not return Bali to Bangladesh until he is interviewed by the Indian office of the United Nations High Commissioner for Refugees (UNHCR), which can determine if he wishes to claim asylum and whether he is a refugee. If he does not wish to claim asylum, or his asylum claim is rejected, India should still not return him to Bangladesh when there is a real risk to his life or of his suffering ill-treatment if he returns there.

“Those involved in his abduction may have assumed Bali would be killed by the Indian Border Security Force when he was pushed into India, or that he would permanently disappear,” Adams said. “There is a real risk to Bali if he is returned to Bangladesh, as he could expose those involved in his abduction. Bali needs access to an independent lawyer and UNHCR so that he can make an informed decision about whether it is safe to return to Bangladesh.”

Video suggests higher Bangladesh protest toll : Al Jazeera

Video footage obtained by Al Jazeera appears to contradict official death toll from May 6 violence in Dhaka.

Last Modified: 14 May 2013 16:47

Al Jazeera has obtained video footage suggesting that the Bangladesh government has been providing inaccurate death tolls from recent violence.

According to official figures, 11 people had died during fighting between police and protesters from Hifazat-e-Islam, an Islamic group, on May 6, a day protesters refer to as the “Siege of Dhaka”.

Human Rights Watch, a US-based rights group, said that the exact number of deaths resulting from the protests are “unclear”.

Bangladesh FM Dipu Moni

“Independent news sources put the figure at approximately 50 dead, with others succumbing to injuries later,” HRW said in a statement on Saturday.

In an interview with Al Jazeera, Bangladesh’s Foreign Minister Dipu Moni downplayed reports of inaccuracy in government figures.

“There can always be an inquiry, there can always be an investigation,” said Moni.

“The government or most of the people in the country doesn’t even think that there was any controversy with the matter,” she added.

Abdul Jalil, a deaf and mute grave digger at Dhaka’s state-run cemetery, communicated that he buried 14 bodies of bearded men with gunshot wounds after the protest, all at night.

The rights group wants an independent inquiry to find out what happened once and for all.